Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৩ মার্চ, ২০১৮ ১০:১৬ অনলাইন ভার্সন
অযত্ন-অবহেলায় বেহাল পান্থকুঞ্জ
নিজস্ব প্রতিবেদক
অযত্ন-অবহেলায় বেহাল পান্থকুঞ্জ

মাদকসেবীদের আড্ডা আর খিস্তিখেউড়ে পার্কে চলে অসামাজিক কার্যকলাপ। পান্থপথের বাসিন্দা মিরাজ হোসেন বলেন, আগে এই পার্কে শিশুরা খেলত, পথিক ক্লান্ত হয়ে একটু বিশ্রাম নিত।

চারপাশে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ। পার্কের লোহার বেষ্টনী ভেঙে উধাও হয়ে গেছে। মল-মূত্রের গন্ধে বিশ্রাম নেওয়া তো দূরের কথা ভিতরে যাওয়াই মুশকিল। রাত হলেই বসে মাদকসেবীদের আড্ডা। অযত্ন-অবহেলায় ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হচ্ছে রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র কারওয়ান বাজারে অবস্থিত পান্থকুঞ্জ পার্কটি।

গতকাল সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, পার্কের মূল ফটক দখল করে বসেছে ভ্রাম্যমাণ দোকান। ফুটপাথজুড়ে ঘর বেঁধেছে মানুষ। পলিথিন দিয়ে ঘিরে বসবাস করছে তারা। পার্কের ভিতর গিয়ে দেখা যায় একটু পর পর ময়লার ঢিবি। কোথাও আগুনে পুড়িয়ে দেওয়ার কারণে ছাই উড়ছে বাতাসে। ময়লা পোড়াতে গিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে পার্কের সামগ্রীও। প্রস্রাবের গন্ধে পার্কের ভিতরে নাকে রুমাল চেপে যেতে হয়। দেয়াল ঘেঁষে গড়ে তোলা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ পায়খানা। যেখানে-সেখানে মল-মূত্র ত্যাগ করায় পার্কের ভিতরে হাঁটাই কঠিন। দিনের বেলা একরকম ভুতুড়ে অবস্থা। সন্ধ্যা নামার পর পাল্টাতে থাকে পরিস্থিতি। মাদকসেবীদের আড্ডা আর খিস্তিখেউড়ে পার্কে চলে অসামাজিক কার্যকলাপ। পান্থপথের বাসিন্দা মিরাজ হোসেন বলেন, আগে এই পার্কে শিশুরা খেলত, পথিক ক্লান্ত হয়ে একটু বিশ্রাম নিত। কিন্তু আবর্জনা আর মাদকের আড্ডায় পার্কে আর কেউ আসে না। সবার চোখের সামনে এভাবে পার্কটি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, অথচ কোনো ব্যবস্থা নেই।

কলাবাগানের বাসিন্দা অমিত রায় বলেন, আগে ছুটির দিনে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে মাঝে মাঝে এই পার্কে আসতাম। আস্তে আস্তে হারিয়ে যেতে থাকে পার্কের জৌলুস। একদিন এসে দেখি শিশুদের দোলনা খুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কে খুলে নিয়েছে কেউ জানে না। স্লিপারগুলোও তুলে ফেলা হয়েছে। শিশুদের খেলাধুলার সামগ্রীগুলো অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। পার্কের একটি ফটক অকেজো হয়ে আছে বহুদিন ধরে। কিন্তু নেওয়া হয়নি কোনো ব্যবস্থা।

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow