Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৩ জুন, ২০১৮ ২৩:০৯
কৌশলী প্রচারণা দুই সিটিতে
বরিশালের প্রার্থীরা এখনো দ্বিধাদ্বন্দ্বে
নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল
বরিশালের প্রার্থীরা এখনো দ্বিধাদ্বন্দ্বে

ইফতার পার্টি, নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মোলাকাত, গণসংযোগ, জাকাতের কাপড় বিতরণ ইত্যাদি সামাজিক কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত রয়েছেন বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। এরা অনেকেই আগে সপ্তাহের বেশিরভাগ সময় ঢাকায় অবস্থান করলেও এখন সময় দিতে শুরু করেছেন নিজ এলাকায়। তারা এলাকায় ইফতার মাহফিলসহ বিভিন্ন সামাজিকতা রক্ষা করছেন। মতবিনিময় করছেন। কিন্তু খোলসা করে ‘আমাকে ভোট দেবেন’ এমন কিছু বলছেন না। দলীয় মনোনয়নের বিষয়ে নিশ্চিত না হওয়ায় সিটি নির্বাচন নিয়ে তারা ‘ভোটকথা’র বেলায় এক ধরনের দ্বিধার মধ্যে রয়েছেন। তাই তাদের বোলচালে এখনো রয়েছে অস্পষ্টতা। সিটি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের বিষয়ে স্থানীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নিতে আগামী ১৮ জুন বিশেষ বর্ধিত সভা ডেকেছে বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ। এরপর ২২ জুন ঢাকায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করার কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের এক সিনিয়র নেতা।  অপরদিকে একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী থাকলেও দলের সিদ্ধান্তের দিকেই তাকিয়ে বরিশালের বিএনপি নেতারা। বিএনপি নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রথম মেয়র মহানগর বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারই মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে পারেন বলে ধারণা অনেকের। যদিও তিনি বিভিন্ন সময় সদর আসনে সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার আগ্রহের কথা বলেছেন।  কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে সরোয়ারকেই দল মনোনয়ন চাপিয়ে দিতে পারে বলে ধারণা অনেকের। সরোয়ার নিজে প্রার্থী হওয়ার জন্য না হলেও প্রতিদিনই দলীয় কর্মকাণ্ডে এবং ইফতার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছেন। যোগাযোগ রক্ষা করছেন নেতা-কর্মীদের সঙ্গে। বিএনপির আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী দলের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক সংরক্ষিত এমপি বিলকিস জাহান শিরিনও বিভিন্ন ইফতার পার্টিতে এবং দলের কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ ছাড়াও নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করার কথা জানিয়েছেন। আরেক মনোনয়ন দাবিদার দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়েদুল হক চাঁন ইফতার পার্টিতে এবং দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ ছাড়াও গণসংযোগ করছেন বলে জানিয়েছেন। পদ-পদবিবিহীন বিএনপি নেতা বিদায়ী মেয়র আহসান হাবিব কামালও ইফতার পার্টিসহ নিয়মিত কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে দিন পাড় করছেন।  এদিকে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল, সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজ, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি কর্নেল জাহিদ ফারুক শামীম, মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদিক আবদুল্লাহ এবং মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুল হক খান মামুনও দলের বিভিন্ন পর্যায়ের ইফতার মাহফিলে যোগ দিচ্ছেন। তারা প্রত্যেকেই নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। কেউ কেউ দিচ্ছেন জাকাতের কাপড় এবং ঈদ বখশিশ। মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল জানান, মনোনয়ন চূড়ান্ত না হওয়ায় বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতা-কর্মীরা নিজ নিজ ওয়ার্ডে নৌকার পক্ষে গণসংযোগ করছেন। সিনিয়র নেতারা বিভিন্ন ইফতার পার্টিতে যাচ্ছেন। নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন। মনোনয়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামী ১৮ জুন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের যৌথ বিশেষ বর্ধিত সভা আহ্বান করা হয়েছে। ওই সভার সিদ্ধান্ত এবং ২২ জুন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পর দল মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে একাট্টা হয়ে কাজ করবে সবাই। জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়নি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow