Bangladesh Pratidin

ফোকাস

  • চাটাইয়ে মুড়িয়ে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান!
  • কেরানীগঞ্জে বাচ্চু হত্যায় ৩ জনের ফাঁসি, ৭ জনের যাবজ্জীবন
  • ৩ মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে খালেদার আবেদন
  • হালদা নদীর পাড়ের অবৈধ স্থাপনা ভাঙার নির্দেশ
  • আফগানিস্তানের বিপক্ষে টাইগারদের টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা
  • কাদেরের বক্তব্যে একতরফা নির্বাচনের ইঙ্গিত: রিজভী
  • কলারোয়া সীমান্তে স্বামী-স্ত্রীসহ ৩ বাংলাদেশিকে ফেরত দিল বিএসএফ
  • বিএনপি নির্বাচনে না এলেও গণতন্ত্র অব্যাহত থাকবে: কাদের
প্রকাশ : ১৭ মে, ২০১৮ ১২:১৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৭ মে, ২০১৮ ১২:১৭
শিশু ধর্ষণের মূল্য ২০ হাজার টাকা!
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
শিশু ধর্ষণের মূল্য ২০ হাজার টাকা!

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে এক শিশুকে জুসের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে উজ্জ্বল মিয়া 

নামের এক লম্পটের বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গুরুতর অবস্থায় তাকে সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। পরবর্তীতে সালিশে ধর্ষিতা শিশুটির পরিবারকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে ঘটনা ভুলে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় বলে জানা গেছে। ঘটনার পর থেকে ধর্ষক উজ্জ্বল মিয়া পলাতক রয়েছে।

জানা গেছে, চুনারুঘাট পৌর এলাকার একটি আশ্রায়ণ কেন্দ্রে বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকে পঞ্চম শ্রেণির ওই ছাত্রী। গত ২ মে শিশুটিকে বাড়িতে একা রেখে বাবা-মা হাওরে ধান কাটার কাজে গেলে সুযোগ বুঝে উজ্জ্বল মিয়া শিশুটির বাড়িতে যান। এবং চেতনানাশক মিশ্রিত জুস খেতে দেন। এরপর শিশুটি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে ধর্ষণ করে উজ্জ্বল। পরদিন ফের একই কায়দায় শিশুটিকে ঘরে একা পেয়ে সে ধর্ষণ করে। এতে শিশুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে মা-বাবার কাছে বিষয়টি খুলে বলে। 

বিষয়টি স্থানীয়রা জেনে গেলে সালিশ বসে। সেখানে চুনারুঘাট পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজল মিয়া দরিদ্র পরিবারটি মামলা দিয়ে কোনো ফায়দা পাবে না বলে দোহাই দিয়ে সালিশে মিটমাট করার কথা বলেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। পাশাপাশি কাউন্সিলর উজ্জ্বল মিয়ার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা নিয়ে শিশুটির চিকিৎসা করার পরামর্শ দেন।

চুনারুঘাট থানার ওসি কেএম আজমিরুজ্জামান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিম পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। এবং শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। অভিযুক্ত উজ্জ্বল মিয়া পলাতক। তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

তবে ২০ হাজার টাকার দফারফার বিষয়ে তিনি বলেন, এটা কেবল স্থানীয়দের মুখ থেকে শুনেছি। এর সত্যতা পাইনি।

বিডি-প্রতিদিন/১৭ মে, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow