Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৩ জুন, ২০১৮ ২৩:২২
যাত্রী পরিবহনে নৌপথের ভূমিকা
মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ
যাত্রী পরিবহনে নৌপথের ভূমিকা

নৌপথে চলাচল সারা বিশ্বের মানুষের প্রাচীন যোগাযোগ ব্যবস্থা। আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা শুরুর আগে নৌপথই ছিল দূরের যাত্রী ও মালামাল পরিবহনের অন্যতম মাধ্যম। তখন নদীবন্দরের পাশেই শহর ব্যবস্থা গড়ে উঠেছিল। ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি বাংলাদেশ অঞ্চলে প্রথম রেলপথ ব্যবস্থা চালুর পূর্ব পর্যন্ত নৌপথ, গরু, ঘোড়ার গাড়ি ব্যবস্থা ছিল আদি যোগাযোগ মাধ্যম। বর্তমানে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের দেশে সড়ক, রেল ও আকাশ যোগাযোগের প্রভূত উন্নতি সাধিত হলেও নৌপথের গুরুত্ব কোনো অংশে কমেনি। নদীমাতৃক বাংলাদেশে অনেক নদী হারিয়ে গেলেও এখনো যে নদীপথ রয়েছে তা দেশের অর্থনীতির উন্নতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। নদীপথ অবারিত। আমাদের দেশে নতুন সড়ক নির্মাণ করলে সেখানে বৈধ, অবৈধ সব ধরনের যানবাহন এসে ঢুকে পড়ে। অনিয়ন্ত্রিত পথচারী, হকার, দোকানপাট, অনেক সময় রাস্তায় চলে আসে। নৌপথ, রেলপথ ও বিমানপথের প্রকৃতিই এমন যে, সেখানে নিজ নিজ পরিবহন বাদে অবৈধ কিছু চলাচলের সুযোগ নেই। বাংলাদেশের  রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দেশের অনেক অঞ্চলের সরাসরি নৌপথে যাতায়াতের সুবিধা রয়েছে। পৃথিবীর অনেক দেশের রাজধানীর সঙ্গে এ ধরনের সুযোগ নেই। যাত্রী পরিবহনের সংখ্যার দিক বিবেচনায় সদরঘাট বা ঢাকা নদীবন্দরকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অভ্যন্তরীণ নদীবন্দর বলা হয়ে থাকে। কারণ ঢাকা থেকে সদরঘাট নদীবন্দরের মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে লক্ষাধিক যাত্রী আসা-যাওয়া করে থাকে। ঈদের ছুটির সময় এ সংখ্যা কয়েক গুণ বেড়ে যায়। ঢাকা নদীবন্দর বা সদরঘাট থেকে বাংলাদেশের ২১টি জেলার ৪৩টি নৌরুটের সঙ্গে লঞ্চের মাধ্যমে যাত্রী পরিবহন হয়ে থাকে। সারা বছরে সদরঘাট থেকে প্রতিদিন প্রায় ৭৫টি লঞ্চ যাত্রী পরিবহন করে থাকলেও ঈদের সময় লঞ্চের সংখ্যা ১৫০টির মতো হয় বলে বিআইডব্লিউটিএ সূত্রে জানা যায়। বর্তমানে সদরঘাটের লঞ্চের বহরে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে অনেক বড় বড় লঞ্চের সংযোজন হয়েছে। বহুতল বিশিষ্ট লঞ্চও আছে এখানে। সবচেয়ে বড় লঞ্চ পাঁচ হাজারের ঊর্ধ্বে যাত্রী নিতে পারে বলে জানা যায়। রাতের বেলা সদরঘাটে নোঙর করা আলো ঝলমল কোনো লঞ্চকে নদীর ওপার থেকে হঠাৎ দেখলে আধুনিক বহুতল ভবনের মতো মনে হবে। 

লঞ্চে যাতায়াতের অনেক সুবিধা রয়েছে। অনেক বড় জায়গা থাকায় যাত্রীরা ভিতরে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাচল করতে পারে। খাবার ব্যবস্থা ও বাথরুম সুবিধা থাকে। বিভিন্ন ধরনের এসি/নন-এসি কামরাসহ পাটাতন ব্যবস্থা রয়েছে। এতে যাত্রীরা সহজে ঘুমিয়ে যাতায়াত করতে পারে। পানিপথ হওয়াতে লঞ্চে বাসের মতো ঝাঁকুনি থাকে না। অনেক যাত্রী আছে যারা ঢাকা থেকে নিয়মিত বৃহস্পতিবার অফিস শেষে রাতে লঞ্চে উঠে ঘুম দিয়ে সকালে ফ্রেশ মুডে নিজ জেলায় পৌঁছে যাচ্ছেন। কাজকর্ম ও পরিবার দেখাশোনা করে শনিবার রাতে লঞ্চে চড়ে সারা রাত আরামে ঘুম দিয়ে রবিবার সকালে ঢাকায় কর্মস্থলে যোগদান করছেন। লঞ্চে বিভিন্ন ক্যাটাগরির আসন/শোবার ব্যবস্থা থাকায় সব ধরনের যাত্রীই নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করতে পারছেন। বলতে গেলে সারা রাত বাসায় ঘুমিয়ে থাকা বা লঞ্চে ঘুমিয়ে থাকার মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য নেই। সেন্ট্রাল এসি করা বিলাসবহুল লঞ্চ দিনের বেলা ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচল করে। বুড়িগঙ্গা নদীসহ আশপাশের বড় বড় নদীতে দিনের বেলায় মালামাল পরিবহনের ট্রলারসহ অনেক মাছধরা নৌকা থাকে। সদরঘাটের যাত্রীবাহী বড় বড় অধিকাংশ লঞ্চই রাতে যাতায়াত করায় ঢেউয়ের কারণে নৌকা/ট্রলারের দিনে চলাচলে সমস্যা হয় না।

পুরান ঢাকার গোড়াপত্তন যখন হয়, তখন থেকেই সদরঘাটের অবস্থান। আগে যেখানে সদরঘাট থেকে বড় বড় নৌকা চলত, এখন সেখানে বড় বড় অত্যাধুনিক লঞ্চ চলে। পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে কেরানীগঞ্জের পূর্ব পর্যন্ত বুড়িগঙ্গার তীর ঘেঁষে ঢাকার আদি শহর গড়ে উঠেছে। মোগল, ব্রিটিশ আমলের বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থাপনার নিদর্শনও রয়েছে এই আদি ঢাকায়। এক সময় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের অনেক কিছুই পরিচালিত হতো এ অঞ্চল থেকে। ঢাকা শহরের কলেবর অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। মানুষের চাহিদাও বেড়েছে বহুগুণ। কিন্তু আদি ঢাকার রাস্তাঘাটের আয়তন বাড়েনি। পুরান ঢাকার মৌলভীবাজার, চকবাজার, মিটফোর্ড, ইসলামপুর, বাদামতলী, নর্থ-সাউথ রোড, নওয়াবপুর রোড, ধোলাইখাল ইত্যাদি অঞ্চলে বিভিন্ন ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের হোলসেল মার্কেট এখনো রয়ে গেছে। যেখানে প্রতিদিন রাতে শত শত ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান আসে মালামাল লোড-আনলোডের জন্য। দিনের বেলায় আবার পিকআপ, ভ্যান, রিকশায় সেগুলো ডেলিভারি হয়। এ কারণে এতদাঞ্চলে দিনে-রাত্রে অনেকটা স্থবির অবস্থা বিরাজ করে। পুরান ঢাকাকে জীবিত রাখতে হলে এ ধরনের ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড বিভিন্ন সুবিধাজনক স্থানে স্থানান্তর করা প্রয়োজন।

বুড়িগঙ্গার তীরে ব্রিটিশ আমলে নির্মিত বাকল্যান্ড বাঁধের কথা আমরা সবাই জানি। গাবতলী থেকে ঢাকা শহর রক্ষা বাঁধের ওপর সুন্দর পাকা রাস্তা নির্মাণ করে বুড়িগঙ্গার বাকল্যান্ড বাঁধের সঙ্গে সংযোগ দেওয়া হয়েছে। সংযুক্ত রাস্তাটি বুড়িগঙ্গার তীর ঘেঁষে সদরঘাট হয়ে পোস্তগোলা ব্রিজ পর্যন্ত পৌঁছেছে। এর মূল লক্ষ্য ঢাকা শহরের যানজট এড়িয়ে সদরঘাটের সঙ্গে গাবতলীর সরাসরি সড়ক যোগাযোগ রক্ষা করা। দিনের বেলায় হকারের দখল, ভাঙারির দোকান, গাবতলী হয়ে আসা ট্রাক/কাভার্ড ভ্যানের মালামাল লোড-আনলোড, বুড়িগঙ্গা দিয়ে নৌপথে আসা মালামালের লোড-আনলোড ইত্যাদি কারণে এই সড়ক অনেকটা বেদখলে থাকে। এ কারণে গাবতলী থেকে সীমিত আকারে বাসের মাধ্যমে যাত্রীরা যানজটের মধ্য দিয়ে বাবুবাজার ব্রিজ পর্যন্ত আসে। অথচ সদরঘাট পর্যন্ত যাতায়াতের সুযোগ থাকা উচিত ছিল। এ সড়কের সবচেয়ে বড় অন্তরায় বাদামতলীর ফলপট্টি। বাদামতলী ফলপট্টিতে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান আসায় রাস্তাটি অনেকটা মৃত রাস্তায় পরিণত হয়েছে। দিন-রাতের অধিকাংশ সময়ই এখানে অসংখ্য ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান দিয়ে ফল লোড-আনলোডসহ রাস্তার ওপর ব্যবসা করা হচ্ছে। এতে একদিকে যেমন যানজট হচ্ছে, অন্যদিকে সারা দিনের ময়লা দিয়ে রাস্তাটিকে ভাগাড়ে পরিণত করা হয়েছে। এদের কারণে আহসান মঞ্জিলের মতো একটি ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থানের সামনের রাস্তা বর্তমানে নোংরার চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। এ ধরনের গাড়ির বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান করা হলেও তা আরও ব্যাপক আকারে করতে হবে। সড়কটিকে যে কোনো মূল্যে সচল রাখতে হবে। ভবিষ্যতে রাস্তাটিকে উদ্ধার করতে হলে হয় সীমিত আকারে ব্যবসা করতে হবে, নয়তো বাদামতলীর ফলের ব্যবসা অন্যত্র স্থানান্তর করতে হবে। সম্প্রতি মিটিং করে বিষয়গুলো ফল ব্যবসায়ী সমিতিকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঢাকা শহর থেকে সদরঘাটে যাওয়ার মূল পথ জিরোপয়েন্ট, গোলাপশাহ, ফুলবাড়িয়া, বংশাল, রায়সাহেব বাজার, বাহাদুরশাহ পার্ক হয়ে সদরঘাট। এ সড়কের দুই পাশে গুলিস্তানের হকার, গুলিস্তান ও ফুলবাড়িয়ার বাস টার্মিনাল, নর্থ-সাউথ রোডের লোহা লক্কর সামগ্রীর হোলসেল ব্যবসা, ট্রান্সপোর্টের ব্যবসা, ইংলিশ রোডের ট্রাক স্ট্যান্ড, কোর্টপাড়া, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামপুর মার্কেট, বাংলাবাজার, শ্যামবাজারের মতো বাস্তবতা রয়ে গেছে। বাবুবাজার ব্রিজ ও ধোলাইখাল সড়ক হয়েও যাত্রী সদরঘাটে আসে। নর্থ-সাউথ রোড, ইংলিশ রোড, ধোলাইখাল রোড, নওয়াবপুর রোড এ চারটি সড়ক এক হয়ে রায়সাহেব বাজার মোড় থেকে অনেকটা সরু হয়ে বাহাদুরশাহ পার্ক দিয়ে রাস্তাটি সদরঘাটে ঢুকেছে। সুতরাং ঈদের সময় চারদিকের যাত্রী ও গাড়ি এসে যখন কোর্টের সামনে দিয়ে সরু রাস্তায় চাপ দেয় তখন ধারণক্ষমতার বাইরে চলে যায়।

ঈদের ছুটিতে সদরঘাটগামী যাত্রীরা মূলত বাসে, রিকশায়, সিএনজি থ্রি-হুইলার, উবার, মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকারে যাতায়াত করে। ঈদের ছুটিতে অসংখ্য সাধারণ যাত্রী গুলিস্তান থেকে সদরঘাট পর্যন্ত পায়ে হেঁটে যাতায়াত করে। হাতে ও মাথায় অনেকের ভারী লাগেজও থাকে। এত যাত্রী হয় যে, গাড়িগুলোকে সদরঘাট পর্যন্ত পৌঁছানোর উপায় থাকে না। শহর থেকে আসা বাস ও হিউম্যান হলার বাহাদুরশাহ পার্ক চত্বরে দ্রুত যাত্রী নামিয়ে আবার ফিরে যায়। রাস্তা কিছুটা হালকা থাকলে সিএনজি, রিকশা, প্রাইভেটকারকে টার্মিনাল পর্যন্ত যেতে দেওয়া হয়। ভিড় বেশি হলে রিকশাসহ সব ধরনের গাড়িকে বাহাদুরশাহ পার্ক থেকে ঘুরিয়ে দেওয়া হয়। সেক্ষেত্রে বাহাদুরশাহ পার্ক থেকে টার্মিনাল পর্যন্ত যাত্রীদের পায়ে হেঁটে যাওয়া ছাড়া বিকল্প থাকে না। এ কারণে ঈদের সময় সদরঘাট হয়ে যাওয়া যাত্রীদের লাগেজ ছোট ও কম ওজনের হলে বহন করতে সুবিধা হয়। সম্প্রতি ঢাকা নদীবন্দর কর্তৃপক্ষ সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালকে চারতলা ভবনসহ আরও বড় করেছেন। আগে লালকুঠি ঘাট পর্যন্ত এবং পশ্চিমে ওয়াইজঘাট পর্যন্ত প্রশস্ত হয়েছে। লালকুঠি ঘাট থেকে চাঁদপুর ও বরিশালের দিনের লঞ্চ ছেড়ে যায়। মাঝের প্রধান ঘাট থেকে বরিশাল, ভোলা, বরগুনা, ঝালকাঠির লঞ্চ ছেড়ে যায়। পশ্চিমের ওয়াইজঘাট থেকে পাটুয়াখালীর লঞ্চ ছেড়ে যায়। এতে আগের তুলনায় অনেক স্বাচ্ছন্দ্য এসেছে। নির্দিষ্ট লঞ্চঘাটের অবস্থান ও আসা-যাওয়ার দিকনির্দেশনামূলক ব্যানার প্রতি বছর লাগানো হয়ে থাকে টার্মিনালে প্রবেশের মুখেই। এ ব্যাপারে বিভিন্ন মিডিয়াতেও প্রচার করা হয়।

সম্প্রতি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতর ২০১৮-এর ছুটিতে সদরঘাটকেন্দ্রিক নির্বিঘ্ন ও নিরাপদে যাতায়াত উপলক্ষে সমন্বয় সভার আয়োজন করা হয়। এ সময় ডিএমপির সংশ্লিষ্ট ইউনিটের কর্মকর্তাগণ বাদেও, নৌপুলিশ, ঢাকা জেলা পুলিশ, নদীবন্দর কর্তৃপক্ষ, ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ, সিটি করপোরেশন প্রতিনিধি, বিভিন্ন পরিবহন মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধি, নৌযান মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধি, বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিনিধিসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষের সুষ্ঠু সমন্বয়ের মাধ্যমে ঈদের ছুটিতে যাত্রীদের সদরঘাট হয়ে নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ যাতায়াতের নিশ্চয়তা বিধান করা হয় এ সভায়।

ঈদের সময় সদরঘাটমুখী যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ লক্ষ্য করা যায়। রাস্তা ও ফুটপাথে হকার বসা, গুলিস্তান ও ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনাল, নর্থ-সাউথ রোডের দুই পাশের ব্যবসাজনিত গাড়ি পার্কিং, অধিক পরিমাণ রিকশা ইত্যাদি। এগুলো নিয়ন্ত্রণের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাই দায়িত্ব পালন করবে বলে সমন্বয় মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত হয়। নর্থ-সাউথ রোডসহ পুরান ঢাকার হোলসেল ব্যবসা ঈদের পূর্বাপর কয়েক দিন বন্ধ থাকবে বলে জানা যায়।

বাহাদুরশাহ পার্ক থেকে সুষ্ঠু পরিবহন নিয়ন্ত্রণের জন্য সেখানে অস্থায়ী কন্ট্রোলরুম স্থাপন করা হয়েছে। কন্ট্রোলরুমে পুলিশসহ পরিবহন মালিক-শ্রমিক সমিতি এবং সিটি করপোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলরগণের প্রতিনিধিগণ  থাকবেন। সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের মধ্যে বিভিন্ন সংস্থার আলাদা কন্ট্রোলরুম ও বিআইডব্লিউটিএ এর আয়োজনে যৌথ কন্ট্রোলরুম স্থাপিত হয়ে থাকে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, নৌপুলিশ, ঢাকা জেলা পুলিশ, র‌্যাব, বিআইডব্লিউটিএসহ বিভিন্ন সংস্থার আলাদা ডিউটি ব্যবস্থা রাখা হয়ে থাকে সদরঘাটে। স্থাপিত কন্ট্রোলরুমে টার্মিনাল, ইনগেট, গ্যাংওয়ে, পন্টুন, প্রবেশ/বাহির রাস্তা কভার করে সিসি ক্যামেরা মনিটরিং ব্যবস্থা থাকে। প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনামূলক তথ্য প্রচারের জন্য কন্ট্রোলরুম থেকে মাইকিং ব্যবস্থা রাখা হয়। লঞ্চের পন্টুনে যখন যাত্রীর চাপ বেড়ে যায়, মাঝে মধ্যে প্রবেশ গেট ও গ্যাংওয়ে গেট বন্ধ রেখে যাত্রী লঞ্চে উঠে হালকা না হওয়া পর্যন্ত তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এর মাধ্যমে বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়।

ঈদের আগে গুলিস্তান থেকে শুরু করে সদরঘাট টার্মিনাল পর্যন্ত বিভিন্ন রাস্তার মোড় ও গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পর্যাপ্ত ট্রাফিক ও ক্রাইম পুলিশ মোতায়েন করা হয়ে থাকে। যানজট নিয়ন্ত্রণপূর্বক সুষ্ঠু চলাচল, দুর্ঘটনা এড়ানো, ছিনতাই/পকেটমার প্রতিরোধ, অজ্ঞান/মলম পার্টি নিয়ন্ত্রণ করাই পুলিশ মোতায়েনের মূল উদ্দেশ্য। ডিএমপির গোয়েন্দা নজরদারিও থাকে এ সময়। সদরঘাট ও এর আশপাশে প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে সুষ্ঠু ও দ্রুত পুলিশিং করার জন্য স্থানীয় বেতার নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা রাখা হয়। যেহেতু সম্প্রতি লালকুঠি ঘাটের সামনে বড় ধরনের পার্কিং ইয়ার্ড নির্মিত হয়েছে সুতরাং সদরঘাটের সামনে মূল সড়কে কোনো গাড়ি পার্কিং না করার জন্য ডিএমপি ট্রাফিকের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। সব সংস্থার ডিউটির জন্য, যাত্রী আনা-নেওয়ার জন্য, সিএনজি, ট্যাক্সিক্যাব, ব্যক্তিগত গাড়িসহ সব ধরনের গাড়িই পার্কিং ইয়ার্ডে রাখা যাবে। এতে সদরঘাটের সামনের রাস্তার প্রশস্ততা নিশ্চিত থাকবে, যাত্রীদের পায়ে হেঁটে চলাচল, হালকা পরিবহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হবে না। বাহাদুরশাহ পার্ক থেকে শুরু করে বাটা ক্রসিং, সদরঘাট ভিআইপি টার্মিনাল, মসজিদ ক্রসিং, কোতোয়ালি থানা, ইসলামপুর রোড হয়ে পুনরায় বাটা ক্রসিং পর্যন্ত রাস্তাটি সার্কুলার আকারে ওয়ানওয়ে থাকবে।

ঈদের পর গভীর রাতে যখন যাত্রীরা সদরঘাটে ফিরে আসে তখন নানা ধরনের বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়। বিগত কয়েক ঈদের পর গভীর রাতে যখন ডিউটি তদারকি করি তখন এ বাস্তবতা আমার নিজের চোখেও পড়েছে অনেকবার। রাত ৩টার পর থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত ফিরতি যাত্রীর চাপ থাকে সদরঘাটে। তখন বাসায় ফিরে যাওয়া সাধারণ যাত্রীদের যাতায়াতের মূল মাধ্যম থাকে বাস, সিএনজি ও ট্যাক্সিক্যাব। রাতে অধিক ভাড়া আদায়ের প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। বাসগুলো পথিমধ্যের যাত্রীর ভাড়া না নিয়ে ডাইরেক্ট ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের প্রতারিত করে। সিএনজি ও ট্যাক্সিক্যাবের দাপট আরও বেশি। দীর্ঘদিন ধরে গভীর রাতের পুলিশ ব্যবস্থাপনায় তেমন গুরুত্ব ছিল না। তবে বিগত কয়েক বছর ধরে ডিএমপির পক্ষ থেকে এ অব্যবস্থাপনার পরিবর্তনের চেষ্টা করা হচ্ছে। এবারে পরিবহন মালিক-শ্রমিক সমিতির সঙ্গে সভা করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে নির্দিষ্ট ভাড়ার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হলে ওই গাড়িকে সরাসরি মামলা/রেকারিং করা হবে। টার্মিনাল এলাকায় গভীর রাতে কোনো বাস/সিএনজি প্রবেশের ক্ষেত্রেও কোনো চাঁদা যাতে না নেওয়া হয় পুলিশের পক্ষ থেকে সেটি নিশ্চিত করার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। সদরঘাটে নতুন চারতলা টার্মিনাল করায় এবং জেলাভিত্তিক পন্টুনের এলাকা ভাগ করে দেওয়ায় আগের তুলনায় যাত্রীরা অনেকটা স্বাচ্ছন্দ্য পেয়েছে। আগে কোনো কারণে লঞ্চ আসতে দেরি হলে যাত্রীদের অপেক্ষার জায়গায় ঘাটতি পড়ত। এখন চারতলা নতুন ভবনে অনেক স্থান সংকুলান হয়েছে। তবে সদরঘাটের সামনের ও আশপাশের রাস্তার আয়তন বাড়েনি। রাস্তা সরু হওয়ার কারণে ওয়ানওয়ে ব্যবস্থা চালু করায় পরিবহন ও যাত্রী চলাচলে কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্য এসেছে। ডিএমপির পক্ষ থেকে বাদামতলী ফলপট্টিকে সীমিত আকারে রাখা বা অন্যত্র স্থানান্তরের বিষয়ে প্রস্তাব করা হচ্ছে। কারণ বাকল্যান্ড বাঁধের বাদামতলী অংশের রাস্তা ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানমুক্ত রাখা গেলে সদরঘাটের রাতের যাত্রী নিয়ে বাস, সিএনজি, রিকশা, ট্যাক্সিক্যাব, হিউম্যান হলার বাহাদুরশাহ পার্ক-সদরঘাট-আহসান মঞ্জিল-বাদামতলী-বাবুবাজার ব্রিজ-তাঁতীবাজার হয়ে সার্কুলার রুটে নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারলে ওই এলাকার পরিবহন ও যানজট ব্যবস্থাপনার আমূল পরিবর্তন হবে বলে মনে হয়। এতে সদরঘাটে যাতায়াত করা যাত্রীদের স্বাচ্ছন্দ্য অনেকটা ফিরে আসবে। বিশেষ করে রাতের যাত্রীর ভোগান্তি অনেকটা কমে যাবে। ডিএমপির পক্ষ থেকে বাদামতলীতে রাস্তায় অবৈধভাবে রাখা ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হলেও এটি যথেষ্ট নয় বলে মনে হয়। উচ্চপর্যায়ের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে বাদামতলীর ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করতে হবে।

ডিএমপির পক্ষ থেকে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করা হয়েছে ভবিষ্যতে সদরঘাটের কৌশলগত স্থানে ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণের জন্য। ওয়াচ টাওয়ার থেকে সব ধরনের লঞ্চের আগমন, নোঙর করা, লঞ্চ ছেড়ে যাওয়া, অতিরিক্ত যাত্রী বহন না করা ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। পুলিশ, বিআইডব্লিউটিএসহ অন্যান্য সংস্থার প্রচেষ্টায় নির্দিষ্ট সংখ্যক যাত্রী ওঠার পর লঞ্চ ছেড়ে দেওয়া নিশ্চিত করা হয়ে থাকে। সদরঘাট ও আশপাশে থাকা প্রতিটি লঞ্চে ওয়াকিটকি (বেতারযন্ত্র) সেট দিয়ে টার্মিনাল থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে লঞ্চ নোঙর করা ও ছেড়ে যাওয়ার বিষয়গুলো সুষ্ঠু ও দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

সদরঘাট টার্মিনাল ও আশপাশের রাস্তা হকারমুক্ত রাখা ও নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করা হয়েছে। এসব স্থান পরিষ্কার রাখার ক্ষেত্রে সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থা, স্থানীয় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানসহ প্রত্যেক নাগরিকের সচেতন হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। রাস্তায় ও নদীতে যত্রতত্র ময়লা না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলা উচিত। সদরঘাট দিয়ে যাত্রী পরিবহনের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। নতুন টার্মিনাল নির্মাণ করা ও উন্নত লঞ্চ আসায় মানুষের স্বাচ্ছন্দ্য আগের  তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থাগুলো অবস্থার উন্নতির জন্য নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করছেন। এতে সদরঘাটকেন্দ্রিক যাত্রীসেবার মান অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। ভবিষ্যতে আরও উন্নত হবে বলে আশা করি।

লেখক : জয়েন্ট পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ)

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, ঢাকা।

ই-মেইল : mofiz333@yahoo.com

এই পাতার আরো খবর
up-arrow