Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৮ জুন, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৭ জুন, ২০১৮ ২২:১৬
ঈদে চাই পাঞ্জাবি
ঈদে চাই পাঞ্জাবি
♦ মডেল : আরেফিন শুভ ♦ পোশাক : ইজি ♦ ছবি : চন্দন রায় চৌধুরী

ঈদ উৎসবে পাঞ্জাবি সবার চাই-ই চাই। এ যেন না হলেই নয়। ছোট ছেলে থেকে শুরু করে তরুণ বয়স্ক সবারই পাঞ্জাবি ছাড়া ঈদ উৎসব কল্পনাই করা যায় না। ঈদের সকালে পাঞ্জাবি বাঙালিয়ানার ঐতিহ্য। আর তা সেই আদিকাল থেকে আজ অব্দি অমলীন। পাঞ্জাবি ছাড়া ঈদ অনেকটাই ফিকে মনে হয়। ঈদ ঘনিয়ে এলেই তরুণ প্রজন্মের মধ্যে আড্ডার প্রধান বিষয় হয়ে যায় ঈদে কে কেমন পাঞ্জাবি কিনবে। প্রতি বছর ঈদের পাঞ্জাবিতে আসে নতুনত্ব। এবারও পাঞ্জাবির বাজারে এর ব্যতিক্রম নয়। এ বছর নতুন সব নকশা আর ডিজাইন দেখা যাচ্ছে পাঞ্জাবির জমিনে। আর নিত্য নতুন প্যাটার্নের কালারফুল পাঞ্জাবির পসরা সাজিয়ে বসেছেন শপিংমলের খুচরা ব্যবসায়ীরা। বিস্তারিত জানাচ্ছেন— সাইফ ইমন

 

ঈদে সবকিছু কেনা হলেও পাঞ্জাবি ছাড়া কেনাকাটার অপূর্ণতা রয়েই যায়। ঈদের দিন নামাজ পড়তে যাওয়া, বিকালে বন্ধুদের সঙ্গে ঘোরা, রাতে পার্টিতে অংশ নেওয়া সবখানেই ছেলেদের ঈদ পোশাক হিসেবে পাঞ্জাবি চাই-ই চাই। পাঞ্জাবিতে হাল ফ্যাশনের বৈচিত্র্যময় ডিজাইন, কালার ভেরিয়েশন, কাটছাঁটে নতুনত্ব সবারই পছন্দ—

 

বর্তমান সময় এবং আবহাওয়ার কথা মাথায় রেখেই এবার ডিজাইনাররা পাঞ্জাবির ক্যানভাসে এঁকেছেন নতুন নতুন ডিজাইন। তরুণদের জন্য আছে নানা ধরনের স্টাইলিশ পাঞ্জাবি। এ ছাড়া আছে পাঠানি কাটের পাঞ্জাবি, যার নিচের দিকে গোল করে কাটা। জুড়ে দেওয়া আছে বাড়তি পকেট। এ ছাড়া কারচুপি বা জারদৌসি কাজের পাঞ্জাবিরও দেখা মিলছে বিভিন্ন শপিংমলে। দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস এবং পাঞ্জাবির দোকানে।

 

ঈদ মানেই রঙিন। উৎসব মানেই রং। আর সেই সব দিক বিবেচনা করে ঈদের পাঞ্জাবিগুলোকে সাজানো হয়েছে নানা রঙে। এক রঙা পাঞ্জাবি তো আছেই! সঙ্গে মিক্স অ্যান্ড ম্যাচিং কালচারও দেখা যাচ্ছে কিছু কিছু ফ্যাশন হাউসের শো-রুমে। লাল, খয়েরি, কমলা, নীল, বেগুনি, সাদা, কালো, এস, হালকা সবুজ নানা রঙের পাঞ্জাবি পাওয়া যাচ্ছে। তবে নতুন ডিজাইনের পাঞ্জাবির দাম নির্ভর করছে কাপড়ের ধরন এবং কারুকাজের ওপর। এবারের ঈদে পাঞ্জাবির কাপড়ের মধ্যে রয়েছে খাদি, মটকা, সুতি, রাজশাহী সিল্ক, আদি, অ্যান্ডি সিল্ক, প্রিন্স সামসি, কুশান, কাসিস, খানশা, জয়শ্রী সিল্ক, অ্যান্ডি কটন, ইন্ডিয়ান সিল্ক, তসর, সামু সিল্ক, ধুতিয়ান, ইন্ডিয়ান চিকেনসহ নানা ধরনের কাপড়। ঈদে সবকিছু কেনা হলেও পাঞ্জাবি ছাড়া কেনাকাটার অপূর্ণতা রয়েই যায়। ঈদের দিন সকালে নামাজ পড়তে যাওয়া, বিকালে বন্ধুদের সঙ্গে ঘোরা, রাতে পার্টিতে অংশ নেওয়া সবখানেই ছেলেদের ঈদ-পোশাক হিসেবে পাঞ্জাবি চাই-ই চাই। তবে পাঞ্জাবিতে হাল ফ্যাশনের বৈচিত্র্যময় ডিজাইন, কালার ভেরিয়েশন, কাটছাঁটে নতুনত্ব সবারই পছন্দ। এমন বৈশিষ্ট্যের শর্ট, সেমি লং, ফুল লং পাঞ্জাবিও এখন বাজার দখল করে আছে। আর তরুণরাও ঝুঁকছে সময়ের সঙ্গে।

 

ঈদের পাঞ্জাবি নিয়ে দেশীয় ফ্যাশন হাউস ইজির ডিরেক্টর তৌহিদুর রহমান বলেন, ‘ঈদের আনন্দ শুরু হয় পাঞ্জাবি দিয়ে। তবে তা হওয়া চাই আকর্ষণীয়। তবে অনেকে এই গরমে পছন্দ করছেন হালকা কাজের পাঞ্জাবি, যা চোখে প্রশান্তি এনে দেয়। কিন্তু বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় পছন্দমতো জমকালো পাঞ্জাবিই প্রাধান্য পায়। রাতের পার্টিতে জমকালো পাঞ্জাবিই ভালো।’

 

বাজার ঘুরে ফ্যাশন হাউসগুলোর আউটলেটে ঘুরে দেখা যায়, তরুণরা এখন পছন্দ করছেন টিউনফিট পাঞ্জাবি। লম্বা বা খাটো দুই ধরনেরই টিউনফিট পাঞ্জাবি আছে বাজারে। তবে খাটো পাঞ্জাবি রয়েছে তরুণদের পছন্দের শীর্ষে। নতুন কাটছাঁটে দেখা মিলছে টিউনিক কলার বা ডাবল কলার, গলার কাজের সঙ্গে মিলিয়ে হাতার নিচে কাজ। কোনোটির বোতাম লাগানো হয়েছে কাঁধের দিকে কেটে। আছে জমিদারি কাটের জমকালো পাঞ্জাবি। যার বুকের দিকে ডাবল পকেট বা জরি সুতার কাজ করা। আবার এক কালারের ফিটিং পাঞ্জাবিও থাকছে। আর হিমুদের জন্য রয়েছে নানা রকম ডিজাইনের হলুদ পাঞ্জাবি। কোনো কোনো পাঞ্জাবিতে আবার ব্যবহার করা হয়েছে থ্রি কোয়ার্টার হাতা। কিছু কিছু পাঞ্জাবির কলার ও বুকের দিকে থাকছে পুঁতি বা সুতার কাজ। 

 

কারুকাজ এবং কাপড়ের ওপর নির্ভর করে এসব পাঞ্জাবি বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৬ হাজার টাকার মধ্যে। তবে বিক্রেতারা জানান, এবারের ঈদ গরম হওয়ায় সুতি পাঞ্জাবির কদর বেশি। হালকা ডিজাইনের সুতির পাঞ্জাবির চাহিদাও ব্যাপক। শর্ট পাঞ্জাবির পাশাপাশি বাজার দখল করে আছে লং আর সেমি লং পাঞ্জাবি। আর কাবলি স্টাইলের পাঞ্জাবিও অনেকে ব্যবহার করছেন।

 

রাজধানী ঢাকার বড় শপিংমল বসুন্ধরা সিটি থেকে আপনার পছন্দমতো পাঞ্জাবি সংগ্রহ করতে পারবেন। এ ছাড়া রয়েছে নিউমার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, সায়েন্স ল্যাবরেটরির মোড়, মালিবাগ, মৌচাক, সদরঘাট, গুলিস্তানসহ নানা ব্র্যান্ডের ফ্যাশন হাউসগুলোর শোরুমে পাওয়া যাচ্ছে পাঞ্জাবি। কাপড়ের মান আর ডিজাইন ভেদে এসব ফ্যাশন হাউসের পাঞ্জাবির দামের রয়েছে ভিন্নতা। শেরওয়ানি ২ হাজার ৯৫০ টাকা থেকে ৫ হাজার ৫০০ টাকা, শর্ট পাঞ্জাবি ৮০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, সেমি লং পাঞ্জাবি ৯৫০ থেকে ১ হাজার ৬০০ টাকা, লং পাঞ্জাবি ১ হাজার ৫০০ থেকে ২ হাজার ৮০০ টাকার মধ্যে পাবেন পছন্দের পাঞ্জাবি।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow