Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ মে, ২০১৮ ২৩:৪৪
গাজায় হাসপাতালে আহতদের ঢল

ফিলিস্তিনিদের জন্য গত মঙ্গলবার ছিল মহাবিপর্যয়ের দিন (নাকবা দিবস)। গত সোমবার ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় নিহত হওয়ার ঘটনায় দিবসটি আরও গভীর শোকে রূপ নেয়। সবচেয়ে বড় ধকল সামলাতে হচ্ছে গাজার প্রধান আল-সাফিয়া হাসপাতালকে। সংঘর্ষ শুরুর পর থেকেই রোগী ও শোকার্ত স্বজনদের ঢল নেমেছে ওই হাসপাতালে। জায়গা না পেয়ে আহত ব্যক্তিদের অনেকেই হাসপাতালের করিডরে আশ্রয় নিয়েছে। তেলআবিব থেকে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের প্রতিবাদে বিক্ষোভে গাজায় ইসরায়েলের হামলায় গতকাল পর্যন্ত নিহত ব্যক্তির সংখ্যা ৬০ ছাড়িয়েছে। ২০১৪ সালের পর এক দিনে এত ফিলিস্তিনি নিহত হওয়ার ঘটনা এই প্রথম। ফিলিস্তিনের কর্মকর্তারা বলেছেন, সহিংসতায় নিহত হওয়ার পাশাপাশি ২ হাজার ৭০০ জন আহত হয়েছেন। গত ৩০ মার্চ থেকে ইসরায়েলি বাহিনী অন্তত ১০৯ জন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। আহত হয়েছে ১২ হাজার। গতকাল ৭০তম নাকবা দিবসেও বিক্ষোভের খবর মিলেছে। গতকালও ইসরায়েলি গুলিতে এক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এবার সংঘাত যে কতটা ভয়াবহ, তা দেখা যায় আল-সাফিয়া হাসপাতালে গিয়ে। সেখানে সাংবাদিকদের পাশাপাশি নিহত ও আহত ব্যক্তিদের স্বজনরা জটলা পাকিয়ে অপেক্ষা করছেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে দূত প্রত্যাহার : ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট   মাহমুদ আব্বাস যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত তার শীর্ষ দূত হুসাম জুমলতকে গতকাল প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। তাকে  ফিলিস্তিনে ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া জাতিসংঘে গতকাল ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলি প্রতিনিধিদের মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ হয়েছে। ফিলিস্তিন পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল  নিরাপত্তা পরিষদের বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত    হয়েছে। আলজাজিরা ও বিবিসি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow