Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর, ২০১৫ ১৩:০৮ অনলাইন ভার্সন
দুনিয়ার মহব্বত মানুষকে উদাসীন বানিয়ে দেয়
মুফতি আমজাদ হোসাইন
দুনিয়ার মহব্বত মানুষকে উদাসীন বানিয়ে দেয়

এ দুনিয়া স্থায়ী আবাসন বা প্রকৃত বাড়ি নয়। এমন কি সব সময় থাকার জায়গাও নয়। আমরাই শুধু এ নশ্বর পৃথিবীতে আগমন করিনি, আমাদের আগে কোটি কোটি মানুষ এ দুনিয়ায় আগমন করেছিল এবং চিরবিদায় নিয়ে চলেও গেছে। দুনিয়ার বদ অভ্যাস হলো, সে মানুষকে উদাসীন বানিয়ে দেয়। মানুষ ভাবতে থাকে যে, ব্যস! দুনিয়াই আমাদের সবকিছু, দুনিয়ার জীবনই স্থায়ী জীবন। এরপর আর কোনো জীবন নেই, হিসাব-নিকাশ নেই, মরণের পর পুনর্জীবনের বিশ্বাসও তার নেই, ইত্যাদি ভ্রান্ত ধারণা সে পোষণ করতে থাকে। এ ছাড়া আর কোনো চিন্তাই সে করে না। পরকালের জন্য কোনো ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ না করে সে উদাসীন থাকে। কিন্তু আজ পর্যন্ত এমন কি কেউ এ দুনিয়ায় আগমন করেছে যাকে এ পৃথিবী হতে বিদায় নিতে হয়নি বা বিদায় নিতে হবে না? বা সে এ দুনিয়ায়ই সর্বদা অবস্থান করছে কিংবা অবস্থান করবে? আল্লাহর বড় বড় নাফরমান যেমন : নমরুদ, হামান, কারুন, ফেরাউন, আবু জাহেল, উৎবা এবং শাইবা- তাদের কেউ কি এ দুনিয়ায় স্থায়ীভাবে জীবন ধারণ করে অবস্থান করছে? ইতিহাস অধ্যয়ন করলে দেখা যায় তারা দুনিয়াকে স্থায়ী আবাসন বানিয়েছিল, আল্লাহকে ভুলে তাঁর বান্দাদের সঙ্গে হঠকারিতায় লিপ্ত হয়েছিল। ফলে আজাবে ইলাহির দ্বারা সমূলে ধ্বংস হয়ে গেছে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে, অতঃপর যে ব্যক্তি সীমা লঙ্ঘন করেছে; এবং পার্থিব জীবনকে অগ্রাধিকার দিয়েছে, তার ঠিকানা হবে জাহান্নাম। (সূরা নাজিআত : ৩৭, ৩৮, ৩৯) অর্থাৎ যে ব্যক্তি আল্লাহ ও তাঁর প্রেরিত রসুলের আনুগত্য ছেড়ে দিয়ে ইবলিসের আনুগত্যে লিপ্ত হয় এবং সে পার্থিব জীবনকে পরকালের ওপর প্রাধান্য দেয়, সে দুনিয়ার খেল-তামাশায় নিজেকে লিপ্ত রাখে পরকাল সম্পর্কে একেবারে গাফেল থাকে।

তার সম্পর্কে বলা হয়েছে, জাহান্নামই একমাত্র তার ঠিকানা। কারণ মানুষ মরণশীল। তাকে অবশ্যই একদিন তার খালেকের (স্রষ্টা) সামনে দাঁড়াতে হবে। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তের হিসাব দিতে হবে। এ দুনিয়ায় এমন কোনো পদ্ধতি আজ পর্যন্ত কেউ আবিষ্কার করতে পারেনি, যা দ্বারা এ পৃথিবীতে আগমনের পর চিরদিনের জন্য সে বসবাস করতে সক্ষম হবে বা দুনিয়ার আরাম-আয়েশকে চিরদিনের জন্য সে ধরে রাখতে পারবে। অবশ্যই মানুষকে এ দুনিয়া থেকে বিদায় নিতে হবে। কোনোভাবেই সর্বদা দুনিয়ায় থাকতে পারবে না। দুনিয়ার এমন কোনো শক্তি নেই যে, কোনো মানুষকে এ পৃথিবীতে সর্বদার জন্য বাঁচিয়ে রাখতে পারবে। সবাইকে একদিন চলে যেতে হবে। যত ইচ্ছা তুমি দুনিয়া কামাও, কোটিপতি, লাখপতি আর রাজা-বাদশাহ হয়ে যাও কিন্তু মনে রাখতে হবে একদিন খালি হাতে সবকিছু ছেড়ে চলে যেতে হবে। এ দুনিয়ার কোনো জিনিসই আমাদের নয়, সবকিছু দুনিয়ায় থেকে যাবে। বিশ্ববরেণ্য কবি আল্লামা শেখ সা’দী (রহ.) গুলিস্তা নামক কিতাবে উল্লেখ করেছেন, ফরিদুন বাদশাহর রাজপ্রাসাদের ওপর লেখা ছিল নিম্নের কয়েকটি পঙ্ক্তি। ‘হে ভাই, এ দুনিয়া কারও কাছে স্থায়ীভাবে থাকে না। সুতরাং দুনিয়ার প্রতি মনোযোগী না হয়ে দুনিয়ার স্রষ্টা এক আল্লাহর প্রতি মনোনিবেশ কর। এ দুনিয়া তোমার মতো অনেককে লালন-পালন করেছে এবং ধ্বংস করেছে। সুতরাং এ দুনিয়ার ওপর ভরসা কর না। যখন পবিত্র আত্মা চলে যায়, তখন সে চাই সিংহাসনের ওপর মৃত্যুবরণ করুক বা মাটির ওপর মৃত্যুবরণ করুক উভয় সমান।’ অর্থাৎ রাজা-প্রজার মাঝে কোনো ধরনের পার্থক্য থাকে না। আমরা আজ এক আল্লাহকে ভুলে গিয়ে, দিন-রাত পাগলের মতো দুনিয়ার পণ্যসামগ্রী একটু একটু করে জমা করছি, দুনিয়া কামাইয়ের উদ্দেশ্যে বিশ্বের আনাচে-কানাচে বিচরণ করে বেড়াচ্ছি, এ দুনিয়া বা দুনিয়ার ক্ষমতা পাওয়ার জন্য কত কিছুই না করছি, আত্মীয়তার বন্ধন অস্বীকার করছি, পিতা-মাতাকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছি, দীন-ইসলামের বিধানাবলীর কোনো পরোয়াই করছি না। এতকিছুর পরও কি এ ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ায় থাকা যাবে? কবরের জীবন বড় কঠিন জীবন। হাদিসে এসেছে, রসুল (সা.) ইরশাদ করেন, কবর হয়তোবা জান্নাতের বাগান হবে অথবা সাপ-বিচ্ছুর গর্ত হবে। যদি মানুষ ইখলাসের সঙ্গে নেক আমল করে তার জন্য কবর জান্নাতের বাগান হবে, আর যদি কেউ ইবলিসের কথা শুনে জীবন পরিচালনা করে তার জন্য কবর জাহান্নামের সাপ-বিচ্ছুর গর্ত হবে। সেই জগতে প্রত্যেক ব্যক্তি নিজেই নিজের নেকির সুফল পাবে এবং বদ আমলের বোঝা নিজেই বহন করবে।  আল্লাহপাক আমাদের সবাইকে বেশি বেশি নেক আমল করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

-লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব, বারিধারা, ঢাকা।

আপনার মন্তব্য

up-arrow