Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১২ মার্চ, ২০১৮ ১৪:০৮ অনলাইন ভার্সন
পরিকল্পিত অর্থায়নে অপচয় রোধ করে দ্রুত উন্নয়ন সম্ভব
নাজমুল হক (সুমন):
পরিকল্পিত অর্থায়নে অপচয় রোধ করে দ্রুত উন্নয়ন সম্ভব

এককাপ কফি ফেলে দেওয়া অর্থ ১৪০ লিটার পানি ফেলে দেওয়া!কারণ এই অল্প পরিমাণ কফি উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণে ১৪০ লিটার পানি ব্যবহৃত হয়। অপচয়ের একটি দিক আমাদের কাছে ধরা পড়ে কিন্তু এর গভীরতা ও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্বন্ধে অনেক সময় আঁচ করতে পারি না। 

উদাহরণ স্বরুপ ঢাকার কাওরান বাজারে প্রতিদিন ১৫০ টন শাক-সবজি অপচয় হচ্ছে যা খাবারের উপযোগী। কিন্তু এই অপচয়কৃত খাদ্য যখন বর্জ্যে রুপান্তরিত হয়, তখন তা ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মোট বর্জ্যে ১৮% বর্জ্য রুপান্তরিত হয়। যা অপসারণ করতে ব্যাপক লোকবল, জায়গা, গাড়ি ও তেলের প্রয়োজন হয়। বর্তমানে বাংলাদেশসহ বিশ্বের যে পরিমান খাদ্য দ্রব্য ও অন্যান্য মৌলিক চাহিদার পন্য অপচয় হয় তা কল্পানাতিত। 

এফএও এর তথ্য মতে প্রতি বছর ১.৩ বিলিয়ন টন খাদ্যের অপচয় হয়। যা কিনা পুরো আফ্রিকা মহাদেশের খাদ্য উৎপাদনের সমান। গার্ডিয়ান পত্রিকা (১০/০১/২০১৩) মতে বিশ্বের খাদ্যের অর্ধেকই অপচয় হয়। অথচ এই অপচয় কমিয়ে মিতব্যয়িতা অবলম্বন করে বিশ্বে অর্থনীতির উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ভারত, চীনসহ আরো অনেক দেশ। বাংলাদেশেও প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে ব্যপক অপচয় হয়। বিশ্বব্যাংক এর তথ্য মতে বাংলাদেশে রাস্তা তৈরিতে প্রতি কিলেমিটারের জন্য খরচ হয় ৬.৬ - ১১.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিশ্বে সর্বোচ্চ। অথচ পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে প্রতি কিলোমিটার রাস্তা তৈরিতে খরচ ১.৩ - ১.৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং চীনে প্রতি কিলোমিটার রাস্তা তৈরিতে খরচ হয় মাত্র ১.১ - ১.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।  

এছাড়া ২০১৭ এর শেষ হিসাব মতে বিদেশে মোট ১ কোটি ৩০ লক্ষ বাংলাদেশী কর্মরত, যাদের বেশির ভাগই অদক্ষ এবং এদের মোট আয় গড়ে ১৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অন্যদিকে বাংলাদেশে বিদেশি দক্ষ লোকবল কর্মরত আছে প্রায় ১,৯৭,০০০। যারা প্রতি বৎসর দেশ থেকে নিয়ে যাচ্ছে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে শুধু ভারতে চলে যাচ্ছে ৪ বিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ শুধু দক্ষতার কারণে তারা আমাদের লোকবল থেকে প্রতিজন প্রায় ২৬ গুণ বেশি আয় করছে। 

শুধুমাত্র বাংলাদেশে কৃষি ব্যবস্থার ক্রটির কারণে বোরো ও আমন বাবদ ২.৩ বিলিয়ন টাকা ক্ষতি হয়। এছাড়াও এফএও এর তথ্য মতে বাংলাদেশে PCF (Per Capita Food) এ ১২০ থেকে ১৭০ কেজি খাদ্য অপচয় হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মতে ২০১৪ সালে ১ কোটি ২৮ লক্ষ ৯২ হাজার ৯৩৩টি ইঁদুর মেরে প্রায় ২০০ কোটি টাকার ফসল রক্ষা করা হয়েছে। অথচ এই প্রজেক্টের ব্যয় হয়েছে খুবই সামান্য। 

বিশ্বের এক-চতুর্থাংশ মানুষ বিশুদ্ধ পানির সুযোগ থেকে বঞ্চিত। বিশ্বের অর্ধেক মানুষ স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ব্যবহারের সুবিধা হতে বঞ্চিত। অথচ এই দুটির অভাবে বিশ্বে প্রতি বছর ৪০ লাখের ও বেশি শিশু মারা যায়। মৃত্যুর আগে তাদের চিকিৎসা বাবদ যে খরচ হয় তা বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ব্যবস্থা করার চেয়ে অনেক অনেক গুন বেশি। 

এছাড়া শুধুমাত্র প্রশিক্ষিত ধাত্রীর অভাবে প্রসবকালীন জটিলতা বিশ্বে প্রতিদিন ১ হাজার নারী ও ২ হাজার শিশুর মৃত্যু ঘটে। ইথিওপিয়ায় এই হার ৯৪% আর ব্রিটেনে এই হার মাত্র ১%। প্রশিক্ষিত ৩ লক্ষ ধাত্রীর মাধ্যমে বছরের দশ লাখের বেশি শিশুকে বাঁচানো সম্ভব। যার মৃত্যুকালিন চিকিৎসা ব্যয় ৩ লক্ষ ধাত্রী নিয়োগ থেকে অনেক বেশি। তাছাড়া একজন মায়ের মৃত্যুতে সন্তানসহ ঐ পরিবারটিতে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়, যার অর্থনৈতিক প্রভাব অনেক দিকে পড়ে। 

বিশুদ্ধ পানি, স্যানিটেশন ও ধাত্রী নিয়োগ সূচকে বাংলাদেশ এখনো আশানুরুপ লক্ষে পৌঁছাতে পারেনি। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে যানজটের কারণে যে পরিমাণ অর্থ ক্ষতিগ্রস্থ হয় তার একটি বাস্তব চিত্র তুলে ধরলাম। বর্তমানে ঢাকা বিশ্বের দ্বিতীয় যানজটের শহর (ওয়াল্ড ট্রাফিক ইনডেক্স ২০১৮)। এর অন্যতম কারণ প্রায় ১০, ২১০০০ (দশ লক্ষ একুশ হাজার) রিক্সা। অথচ এই রিক্সা সম্পূর্ণ উঠিয়ে নিলে কয়েক দিকে আমরা লাভবান হব যেমন-

 (১) সল্প দূরত্বে হেটে যেতে বাধ্য হবো। বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ২৩.৩৬% লোক নিম্নোক্ত রোগ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে। যেমন:- হৃদরোগ- ৭%, ডায়াবেটিকস- ৩.৮%, স্ট্রোক- ৬.৮%, রক্তচাপ-২.২৪%, কিডনি রোগ-৩.৪৮%। যার চিকিৎসা ব্যয় বহুল অথচ প্রতিদিন আমরা সল্প সময়ের জন্য হাটাহাটি করলে এই রোগগুলো ব্যাপকভাবে কমে আসবে। 

(২) যানজটের কারণে প্রতিদিন ৩২,০০,০০০ (বত্রিশ লক্ষ) শ্রম ঘণ্টা নষ্ট হয় এবং প্রতিবছর যানজটের কারণে ক্ষতি হয় ৯৮,০০০ কোটি টাকা। 

(৩) যানজটের কারণে মানসিক ও শারিরিক অসস্থি হতে মুক্ত হবে। ঢাকার লোকজন কমে যাবে, পারিবারিক ভাঙ্গন ও কলহ এবং হ্রাস পাবে সামাজিক অস্থিরতা। 

(৪) এই ১০ লক্ষ ২১ হাজার রিক্সা চালকের সাথে পরিবারসহ প্রায় ৪০ লক্ষ লোক বস্তি স্থাপন করে ঢাকায় থাকছে। যে বস্তিগুলোতে অবাধে মাদক দ্রব্য বেচাকেনা হচ্ছে এছাড়া মাদক দ্রব্যর সাথে জড়িত প্রায় ৬৫ লক্ষের বেশি যুবক যারা শুধু মাদক সেবনে ব্যয় করে ৪০০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা প্রায় ৩২০০০ কোটি টাকা। এই মাদকের ৫০% আসে মায়ানমারের ইয়াবার মাধ্যমে। মায়ানমানের সাথে আমাদের সীমান্ত মাত্র ৫৪ কিলোমিটার। উপরে উল্লে­খিত রিক্সা চালকদের সবাইকে যদি মাদকের প্রতিরোধ বাহিনী হিসাবে সীমান্তে ব্যবহার করা হয়। তবে প্রত্যেক জনকে প্রায় ৩,৫০,০০০ টাকায় বেতন ভুক্ত করা যাবে। এছাড়াও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিদিন ৬৪ জন ব্যক্তি নিহত হয় এবং আর্থিক ক্ষতি হয় ৩৪ হাজার কোটি টাকা এবং যানজটে জ্বালানি বাবদ ব্যয় হয় ৯৮ হাজার কোটি টাকা। অথচ বাংলাদেশে বর্তমান বেকার যুবকের সংখ্যা প্রায় ২৬ লক্ষ। এদের সকলকে যানজট ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধ বাহিনী হিসাবে নিয়োগ দিলে প্রত্যেককে ৫,০৭,৬৯৫ টাকায় বেতনভুক্ত করা যাবে এবং রাজধানী যানজট মুক্ত হলে জাতীয় প্রবৃদ্ধি প্রতি বছর ৭% বেশি নিশ্চিত করবে।

এনবিআর এর তথ্য মতে গত ৩ বছরে ৬৩,০০৩,৮১৮ কোটি মোবাইল ফোন বাংলাদেশে এসেছে। যদিও বেসরকারী তথ্য মতে এই সংখ্যা ১২ কোটিরও বেশি। তাছাড়া  বিটিআরসি এর হিসাব মতে প্রতি বছর ৩ কোটি মোবাইল আমদানী হয় এবং বাংলাদেশে আমদানিকৃত ইলেকট্টনিক্স পন্য, গাড়ি অন্যান্য বিলাসবহুল পন্য যে টাকায় আমরা আমদানী করি, তা আমাদের কষ্টার্জিত আয় ও রেমিটেন্স এর বেশির ভাগ বিদেশে চলে যায়। কিন্তু যদি আমরা নিজ দেশে এগুলো উৎপাদন করতে পারি। তবে বাংলাদেশে ব্যাপক কর্মস্থানের সৃষ্টি হবে এবং অপচয় রোধের মাধ্যমে খুব দ্রুত উন্নয়ন সম্ভব হবে। ১৯৯৭- ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ এর সিস্টেম লস ছিল ৪৭% যা কমতে কমতে বর্তমানে ৭% এ পৌঁছেছে। কিন্তু অন্যান্য সেক্টরে অপচয়ের মাত্রা তেমন কমে নাই, তবে চেষ্টা করলে তা সম্ভব। ইহা প্রমাণিত।

লেখক: প্রভাষক, বনানী বিদ্যানিকতেন স্কুল এন্ড কলেজ, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা।


বিডি প্রতিদিন/১২ মার্চ ২০১৮/হিমেল

আপনার মন্তব্য

up-arrow