Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২২ মে, ২০১৮ ০২:৫৬ অনলাইন ভার্সন
দ্বিধাবিভক্ত প্রাথমিক শিক্ষা: জ্ঞানের সর্বাঙ্গসম্পূর্ণতায় কতটা ফলপ্রসু?
সমীর দাশ:
দ্বিধাবিভক্ত প্রাথমিক শিক্ষা: জ্ঞানের সর্বাঙ্গসম্পূর্ণতায় কতটা ফলপ্রসু?
সংগৃহীত ছবি

শিশু পৃথিবীর আলো দেখার পর প্রথম ভাষা শেখে তার মায়ের মুখে। আর এভাবেই তার প্রথম ভাষা হয় মাতৃভাষা, যে ভাষাতে সে তার অনুভূতির আদান প্রদান করে। এই ভাষা যতটা হৃদয়ঙ্গম হয় পৃথিবীর আর কোনো ভাষা ততটা হৃদয়স্পর্শ করতে পারে না। প্রকৃতির সকল আবেদন মায়ের ভাষায় অনূদিত করে শিশু বুঝতে শেখে। পরিবার, ছুঁয়ে দেখা পরিবেশ, অনুকরণ এগুলোই তার জানার প্রাথমিক মাধ্যম। এরপর শুরু হয় প্রাতিষ্ঠানিক প্রাথমিক শিক্ষা। সাধারণত ৪ থেকে ১২ বছর বয়স পর্যন্ত বিস্তৃত এই শিক্ষাস্তর। এখানে তার পরিবেশকে আরেকটু সাজিয়ে গুছিয়ে সে জানতে, বুঝতে শেখে, শুরু হয় বিশ্বজ্ঞানের আরম্ভযাত্রা। 

এখানে এসে তাকে প্রথম যে ধাক্কাটা সামলাতে হয়, তা হলো অপরিচিত পরিবেশ, অপরিচিত অনেক নতুন মুখ। এ পরিবেশেও সে মানিয়ে নিতে শেখে যখন সে পরিচিত ভাষার মাধ্যম পায়, করতে পারে সহানুভব অনুভূতির বিনিময়। ধীরে ধীরে গড়ে তোলে তার-আপনার পরিচিত পরিবেশ।

প্রাথমিক শিক্ষা যা কিনা প্রতিটি শিশুর চিরন্তন অভ্যাস তা একই প্রকৃতির হওয়া বাঞ্ছনীয় নয় কি? অথচ আমাদের দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় রয়েছে কি বিচিত্র বিভিন্নতা। বাংলাদেশে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় (MoPME) কর্তৃক পরিচালিত ৮ প্রকার, শিক্ষা মন্ত্রণালয় (MoE) কর্তৃক পরিচালিত ৩ প্রকার, (MoC) কর্তৃক পরিচালিত ২ প্রকার, বেসরকারী সংস্থা (NGO Bureau) কর্তৃক পরিচালিত ৩ প্রকার, এবং অন্যান্য সংস্থা কর্তৃক পরিচালিত ৯ প্রকার, সর্বমোট ২৫ প্রকারের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা প্রচলিত (সূত্র: এপিএসসি ২০১৬) যাদের অধিকাংশেরই আছে নিজস্ব শিক্ষাক্রম। আছে পাঠদানে শিক্ষকের স্বতন্ত্র এবং ভিন্ন পদ্ধতিও। অথচ সবাইকে একই প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিয়ে তাদের যোগ্যতার পরিমাপ করা হয়। আমার প্রশ্ন হলো প্রাথমিক শিক্ষা বা Elementary Education এ কেন এই ভিন্নতা? আমরা কি শিক্ষা জীবনের শুরুতেই আমাদের সন্তানদের বুঝিয়ে দিচ্ছি না যে আমাদের সাধারণ কোনো শ্রেণি নেই অথবা আমারা তাই নই যা ওরা, অথবা ওরা তাই নয় যা আমরা। এই ভিন্নতা কি আমাদের সন্তানদের সুস্থ ও সুষমভাবে বাড়তে, চলতে, মানতে বাঁধা সৃষ্টি করছে না? 

আমি আশ্চর্য হয়ে যাই, আজ প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার জন্য ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করা হয়। ছোট ছোট শিশুদের নেওয়া লাগে বিসিএস এর মতো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রস্তুতি। আমি ভেবে পাই না ৩/৪ বছর বয়সী একটি শিশুর কতটা জ্ঞান প্রয়োজন। তারা আজ খাওয়া, ঘুম, খেলাধুলা ভুলতে বসেছে। চোখে মোটা চশমা, পিঠে ভারী ব্যাগ নিয়ে তারা বিদ্যালয়ে যায় প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করতে। আমার তো মনে হয় না পৃথিবীর অন্য কোন দেশে এই বয়সী শিশুদের দিয়ে এই ভারোত্তলন করানো হয়। প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের অধিকাংশ কর্মচারী তাদের সন্তানদের নিতান্ত বাধ্য না হলে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াতে আগ্রহী নন অথচ তারাই চিবাচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষার নির্যাসহীন আখচর্ম। কেননা, তাদের সন্তানদের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াতে অধিদপ্তরকে অনুরোধ করতে হয়। শিশিরবিন্দুর সৌন্দর্য দেখাতে সবসময় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নাও পাওয়া যেতে পারে, তাই বলে কি আমরা সকল সৌন্দর্যে বঞ্চিত হবো, বঞ্চিত করবো আমাদের সন্তানদেরকেও? দেখানো রাস্তায় নয়, তারা কি হাঁটতে পারবে না নিজের ভাষায় খুঁজে পাওয়া কোনো অরণ্যে?

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪১) বলেছেন, ‘আধুনিক সমস্ত বিদ্যাকে জাপানি ভাষায় সম্পূর্ণ আয়ত্তগম্য করে তবে জাপানি বিশ্ববিদ্যালয় দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে সত্য ও সম্পূর্ণ করে তুলেছে।’ (‘রাশিয়ার চিঠি’, পৃ. ৭০)। বিশ্বের উন্নত দেশের মডেল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে বিদ্ধস্ত জাপান তার সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠে মাতৃভাষায় শিক্ষা দান করে শিক্ষাকে করছে সর্বসাধারণের, কারণ তারা জানে সর্বসাধারণের উন্নয়নই দেশের উন্নয়ন আর শিক্ষাই হচ্ছে তার মূল ভিত্তি। অথচ আমরা প্রাথমিক শিক্ষা স্তরেই ইংরেজি মাধ্যমে আমাদের উচ্চ বংশীয় সন্তানদের সামনে আমাদের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরছি, অপরিচিত করে তুলছি অতি পরিচিত অনুভূতিকেও। আমরা আমাদের প্রাথমিক শিক্ষাকে উঁচু, মধ্যম, নিচু প্রভৃতি শ্রেণিতে বিভক্ত করে আমাদের আগামী প্রজন্মের জ্ঞানের ভিতকে করছি দ্বিধাগ্রস্ত। সন্তানকে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল বা কিন্ডার গার্টেনে পড়াতে পারলে বাবা-মায়ের গর্বের অন্ত থাকে না। প্রতিযোগিতা এখন আর শিক্ষার্থীদের বিষয় নয়, বিষয় তাদের মম্-ড্যাডের। অথচ শিশু পারছে না তার শিখনকে পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিতে। এর ফলে সে এক দিধাগ্রস্ত পরিবেশের সাথে নিয়ত দ্বন্দ্বে আবর্তিত হতে হতে বেড়ে উঠছে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ছেলেবেলা প্রবন্ধে সেজদাদার উক্তিতে বলেছেন, ‘আগে চাই বাংলা ভাষার গাঁথুনি, তার পরে ইংরেজি শেখার পত্তন’। আমরা গাঁথুনি বর্জন করে পত্তনে প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছি আমাদের সন্তানদের, ভাবছি না এতে তাদের পত্তন হচ্ছে, নাকি পতন ।

মাতৃভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে এমন নজির বিশ্বে আর কোনো দেশে নেই অথচ এই আমাদের দেশেই শিক্ষা ব্যবস্থায় এ ভাষাকে কত অবজ্ঞা করা হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা কেন বিদেশী ভাষায় বা ইংরেজি মাধ্যমে হবে? প্রাথমিক শিক্ষায় এ অবজ্ঞা কি অভিশাপ নয়? এখনো আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১ম শ্রেণি থেকেই পড়ানো হয় Apple মানে আপেল, Cat মানে বিড়াল অথচ জাপানে ৫ম শ্রেণির পূর্বে কোনো বিদেশী ভাষা শেখানো হয় না। এখনো আমাদের প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম ভীতি ইংরেজি বিষয় তবুও এ বিষয়ের অবস্থান অনড়। যে শিক্ষার্থী বাংলা-ই ঠিকমত হৃদয়ঙ্গম করতে পারে নি তার মুখের ইংরেজি যে হৃদয়ের না, তা যে তার নিতান্তই মুখস্ত বিদ্যা যা দিয়ে বেশিদূর অগ্রসর হওয়া যায় না এ আমাদের বিশ্বাসমূলে আঘাত হানতে অক্ষম। আমাদের পিতামাতা সন্তানের মুখ থেকে কয়েকটি ইংরেজি শব্দ না শুনতে পেলে হেরে যায় অন্য সন্তানের পিতামাতার কাছে। অথচ তারা ভাবেও না তার সন্তান তার নিজের ভাষায় অভিব্যক্তি প্রকাশে সক্ষম কি না। আবুল মনসুর আহমদ (১৮৯৮-১৯৭৯) বলেছেন, ‘বিদেশী ভাষা শিখিব মাতৃভাষায় শিক্ষিত হইবার পর আগে নয়।’ এটা আমরা নীতিকথা হিসেবে মুখস্ত করি, হৃদয়ঙ্গম করি না।

যদি আমাদের সন্তানদের বৈষম্যহীন একটি সাধারণ প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা উপহার দেওয়া যেত, যেখানে সবাই একই ধরণের বিদ্যালয়ে যাবে, একই বই পড়বে, ছুঁয়ে দেখা পরিবেশের স্পর্শ পাবে, বিদ্যালয় হবে তার আনন্দের স্থান; হয়তো মানবিক গুণের অধিকারী প্রকৃত মনুষ্যত্বধারী হয়ে উঠতে তারা থাকতো একধাপ এগিয়ে।

লেখক: সহকারী উপজেলা শিক্ষা আফিসার, ডুমুরিয়া, খুলনা।  (shomirdass@gmail.com)


বিডি প্রতিদিন/২২ মে ২০১৮/হিমেল

আপনার মন্তব্য

up-arrow