Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ৫ মে, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৪ মে, ২০১৮ ২১:৪২
বিস্ময়ের তাজমহল
বিস্ময়ের তাজমহল

কত গল্প, কত কাহিনী ভারতের আগ্রার তাজমহল নিয়ে। স্ত্রী মমতাজের জন্য সম্রাট শাহজাহানের গড়া এ সমাধিসৌধকে প্রেমের অমর নিদর্শনও বলে। এটি পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যেরও একটি। ১৯৮৩ সালে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া এ সমাধির নির্মাণ শুরু হয় ১৬৩২ খ্রিস্টাব্দে। পুরো কাজ শেষ হয় ১৬৫৩ খ্রিস্টাব্দে। ঘুরে এসে লিখেছেন— গাজী মুনছুর আজিজ

 

 

গেট দিয়ে ঢুকে বিস্ময়ে থমকে দাঁড়াই। একটু দূরে দাঁড়িয়ে ধবধবে সাদা শ্বেতপাথরের তাজমহল। মূলত এটি সম্রাট শাহজাহান গড়েছেন তার স্ত্রী মমতাজের সমাধিসৌধ হিসেবে। অবশ্য স্ত্রীর পাশে সম্রাটও এখানে সমাহিত। কত গল্প, কত কাহিনী ভারতের আগ্রার এ তাজমহল নিয়ে। এটাকে প্রেমের অমর নিদর্শনও বলে। এটি পৃথিবীর সপ্তম আচার্যেরও একটি। সব মিলিয়ে কিঞ্চিত ঘোরে আছি। ভ্রমণসঙ্গী সাইক্লিস্ট আবুল হোসেন আসাদ বললেন, চলেন সামনে এগোই। তার কথায় ঘোর কাটে, পা বাড়াই সামনের দিকে।

তাজমহলের ঠিক সামনাসামনি লম্বা ফোয়ারা। ফোয়ারার পানিতে তাজমহলের প্রতিফলন দেখা যায়। এ ফোয়ারার দুই পাশে রাস্তা। আমরা এক পাশের রাস্তা দিয়ে হাঁটছি তাজমহলের দিকে। বিকাল হওয়াতে পর্যটকের বেশ ভিড়। একটু সামনে এগোলেই উঁচু বেদি। বেদির চারপাশেও ফোয়ারা। এ বেদিতে দাঁড়িয়ে তাজমহলকে কাছ থেকে পূর্ণাঙ্গরূপে দেখি। এখানেও আছে পর্যটকের বেশ ভিড়। বেদিতে বসার চেয়ারও আছে। মূলত এ বেদি বানানো হয়েছে তাজমহলকে কাছ থেকে ভালোভাবে দেখার জন্য।

বেদি থেকে নেমে হেঁটে আসি তাজমহলের আরও কাছে। বেশ উঁচু বেদির ওপর তাজমহলের মূল কাঠামো। বেদিতে ওঠার আগে কাপড় বা বিশেষ ধরনের কাগজের সাদা মোজা পরে নিই। টিকিটের সঙ্গে এ মোজা দেওয়া হয়েছে। মানুষের হাঁটাচলায় তাজমহলের সৌন্দর্যের কোনো ক্ষতি বা ক্ষয় যেন না হয় সেজন্যই এ মোজা। বেদির সিঁড়ি বেয়ে উঠে আসি তাজমহলের সামনের গেটে। গেটের সামনে দর্শনার্থীর দীর্ঘ লাইন। আমরাও লাইনে দাঁড়াই। কিছুক্ষণের মধ্যে ঢুকি মহলের ভিতর।

মহলের ভিতরের ঠিক মাঝ বরাবর পাশাপাশি মমতাজ ও মুঘল সম্রাট শাহজাহানের কবর। তাদের কবরের চারপাশে চক্কর দিই। মহলের বাইরে ছবি তোলার সুযোগ থাকলেও ভিতরে তোলা নিষেধ। তাই কবরের ছবি তুলছি না। কবরের চারপাশে ঘোরার সময় দেখি মহলের গাইড টর্চলাইট দিয়ে কবরের দেয়ালের শ্বেতপাথরে আলো ফেলছেন। টর্চের আলো ভেদ করে একপাশ থেকে অন্যপাশে যাচ্ছে। গাইড দর্শনার্থীদের বোঝালেন প্রকৃত শ্বেতপাথর আলো ভেদ করতে পারে। ভিতরে দর্শনার্থীদের বেশিক্ষণ থাকতে দেয় না। বের হই মহলের পেছনের গেট দিয়ে।

মহলের পেছন দিয়ে বয়ে গেছে যমুনা নদী। ঠিক যমুনার তীর ঘেঁষা এ মহল। নদীর ওপাড়েও ইমারত লক্ষ্য করি। বলা হয়ে থাকে তাজমহলের বাগানের নকশায় নদীও অন্তর্ভুক্ত ছিল। হেঁটে মহলের চারপাশ ঘুরি। সামনের গেটের দরজার চারপাশে কালোরঙে আরবি ক্যালিগ্রাফি লেখা। একই ধরনের ক্যালিগ্রাফি পেছনের দরজার চারপাশে যেমন আছে, তেমনি অন্য দুই পাশের দেয়ালেও আছে। ক্যালিগ্রাফি ছাড়াও মহলের দেয়ালে আছে শ্বেতপাথরে খোদাই করা ফুলসহ বিভিন্ন জ্যামিতিক নকশা। এ ছাড়াও মহলের দেয়ালে শোভা পাচ্ছে নানা রঙের পাথর দিয়ে করা নকশা। মহলের জানালাগুলোও সাদা শ্বেতপাথর কেটে তৈরি। মহলের চারপাশে কয়েকবার চক্কর দিই। তারপর নামি। মহলের পশ্চিম ও পূর্বপাশে আছে মসজিদ ও জাওয়াব নামের মেহমান খানা। এ মসজিদ ও মেহমানখানাও তৈরি নান্দনিক নকশায় এবং দুটি স্থাপনাই একই রঙ, নকশা ও একই আয়তনের। মহলের পেছনের পাশ ছাড়া তিনপাশই দেয়াল ঘেরা। তিনপাশে গেটও তিনটি। প্রধান গেটটি মহলের প্রধান দরজা বরাবর। আমরা হেঁটে আসি পূর্বপাশের গেটের দিকে। দূর থেকে আবার তাকাই মহলের দিকে। সত্যিই পাথরে খোদাই করে তৈরি এ স্থাপনার রং, নকশা, সূক্ষ্ম কারুকার্য দেখে বিস্মিত। ইতিহাস থেকে জানি এ মহল বা সমাধি নির্মাণ শুরু হয় ১৬৩২ খ্রিস্টাব্দে। পুরো কাজ শেষ হয় ১৬৫৩ খ্রিস্টাব্দে। এর ভিত্তি আর সমাধি নির্মাণ করতে সময় লেগেছিল প্রায় ১২ বছর। পুরো আঙ্গিনার বাকি অংশ নির্মাণ করতে লেগেছিল আরও ১০ বছর। অবশ্য মহলের পুরো অংশের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই শাহজাহান তার ছেলে আওরঙ্গজেব দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত ও আগ্রার কেল্লায় গৃহবন্দী হন। বলা হয় জীবনের বাকি সময়টুকু শাহজাহান আগ্রার কেল্লার জানালা দিয়ে তাজমহলের দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকতেন। তার মৃত্যুর পর আওরঙ্গজেব তাকে তাজমহলে স্ত্রী মমতাজেরর পাশে সমাহিত করেন। তাজমহলের নকশা কে করেছিলেন এ প্রশ্নের সঠিক উত্তর মেলা দায়। তবে এটা নিশ্চিত যারা এর নকশাকার বা কারিগর তারা সত্যিই শিল্প-নৈপুণ্যসম্পন্ন। আর এ কারিগরি দলটির প্রথম দর্শক ছিলেন আহমেদ লাহুরী। তার নাম এ মহলের মূল নকশাকারক হিসেবে কেউ কেউ বলে থাকেন। অবশ্য এটাও সঠিক উত্তর নয়। মূলত এ মহল পারস্য, তুরস্ক, ভারতীয় ও ইসলামী স্থাপত্যশিল্পের সম্মিলন। এটি ১৯৮৩ সালে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে স্বীকৃতি পায়। বর্গাকার একটি বেদির ওপর দাঁড়িয়ে এ মহল। বেদির চারকোণে চারটি মিনার। এগুলোর উচ্চতা ৪০ মিটারের বেশি। মিনারগুলোতে তাজমহলের প্রতিসমতার ব্যাপারটিই লক্ষ্য করা যায়। মহলের ঠিক মাঝ বরাবর একটি বড় গম্বুজ। চারপাশে আছে আরও চারটি গম্বুজ। সব গম্বুজই একই নকশার এবং সব গম্বুজের উপরেই আছে কাঁসার চূড়া বা দণ্ড। চূড়ার উপরের অংশটি চাঁদ এবং চাঁদের উপরের অংশটি তাক করা শিং আকৃতির। এ চাঁদ ও তাক করা শিং মিলে ঐতিহ্যবাহী চিহ্নেরই আকার ধারণ করে বলে মনে করেন ঐতিহাসিকরা। ঠিক সঠিক তথ্য নয়, তবু ধারণা করা হয় এ মহল নির্মাণে খরচ হয়েছে তৎকালীন আনুমানিক ৩২ মিলিয়ন রুপি। তবে শ্রমিকের খরচ, নির্মাণের সময় এবং তৎকালীন অর্থনৈতিক যুগের কারণে  এর মূল্য অনেক। ফলে একে অমূল্যই বলা যায়।

 

কেনাকাটা

আগ্রায় কেনাকাটার অনেক দোকান আছে। প্যাকেজে গেলে ট্রাভেল কোম্পানিরা গাইড কেনাকাটার বিভিন্ন দোকানে বাস থামাবে। তাজমহলের রেপলিকা কেনার সময় অবশ্যই দেখেশুনে কিনবেন। সুযোগ থাকলে দরদাম করে কেনাই ভালো। এ ছাড়া রাজধানী শহর দিল্লি জুড়েই আছে অসংখ্য শপিংমল। এসব শপিংমলে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের ঐতিহ্যবাহী পণ্যগুলো পাবেন। বিশেষ করে পাবেন দার্জিলিংয়ের চা, কাশ্মীরের রেশমি কাপড়, রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ বা বিভিন্ন রাজ্যের তাঁতের কাপড়। আর পাবেন নানা স্বাদের চকলেট। এক দামের দোকান ছাড়া দরাদরি করে কেনার সুযোগও আছে। তবে যেখানে একদাম সেখানে দরাদরি করতে যাবেন না।

 

যেখানে থাকবেন

আগ্রাতে থাকার হোটেল আছে। এ ছাড়া দিল্লি শহর জুড়েই আছে পাঁচতারকাসহ নানা মানের হোটেল। হোটেল বেশি পাবেন পাহাড়গঞ্জ এলাকায়। এটা দিল্লির পুরাতন শহর। ভাড়া ৬০০ রুপি থেকে শুরু করে ৬ হাজার রুপি পর্যন্ত।

 

কীভাবে যাবেন

বাস, ট্রেন বা বিমানে কলকাতা। শিয়ালদহ বা হাওড়া থেকে রাজধানী এক্সপ্রেস বা দুরন্ত এক্সপ্রেস ট্রেনে দিল্লি। চাইলে কলকাতা থেকে বিমানে দিল্লি যেতে পারবেন। দিল্লি থেকে ভ্রমণ পরিচালনাকারী বিভিন্ন সংস্থার আগ্রা বা তাজমহল দেখার দিনব্যাপী প্যাকেজ আছে। বিশেষ করে পাহাড়গঞ্জ এলাকার হোটেলগুলোতে এ প্যাকেজ পাওয়া যাবে। দিল্লি থেকে বাসে গিয়েও দেখে আসতে পারেন।

 

খাওয়া-দাওয়া

আগ্রার আশপাশে হোটেল-রেস্টুরেন্ট আছে। পাহাড়গঞ্জ এলাকায় নানা মানের রেস্টুরেন্ট আছে। সাদাভাত, বিরানি, মাছ, মাংস, শাকসবজি সবই পাবেন। ১৫০ থেকে ২০০ রুপিতে থালি প্যাকেজ আছে। এক থালিতে ভাত, ডাল, সবজি, সালাদ থাকে। ২০০ বা ২৫০ রুপির মধ্যে মাছ-মাংসও পাবেন এবং প্রতিটি খাবার সুস্বাদু।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow