Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৫ মে, ২০১৮ ২৩:১৩
কী আর বলব সব তো পুড়ে ছাই
ক্রীড়া প্রতিবেদক
কী আর বলব সব তো পুড়ে ছাই
কিংবদন্তি সাঁতারু মোশাররফ হোসেন খান

৭০ দশকে ফুটবলে কাজী সালাউদ্দিনের সেকি দুর্দান্ত দাপট। প্রতিটি ম্যাচে অসাধারণ নৈপুণ্য প্রদর্শন করে দর্শকদের মন জয় করেন তিনি। তারকা নন, বাংলাদেশের প্রথম সুপারস্টার সালাউদ্দিনই। ওই সময়ে আরেক খেলোয়াড় লাগাতার সাফল্য পেয়ে আলোড়ন তোলেন। সালাউদ্দিনের পাশাপাশি তিনিও সুপরিচিত হয়ে ওঠেন। তিনি হচ্ছেন সাঁতারু মোশাররফ হোসেন খান। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সোনা জেতাটা যার অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল।

ফুটবল, ক্রিকেট, হকির মতো জনপ্রিয় খেলা ছাড়া অন্য খেলাতেও যে সুপারস্টার হওয়া যায় তার বড় প্রমাণ মোশাররফ। সাফল্যের বিচার করলে তিনি সালাউদ্দিনের চেয়ে অনেক এগিয়ে। কেননা সালাউদ্দিনের পদচারণা ছিল ঘরের মাঠেই। মোশাররফ ঘর ছাড়িয়ে বিদেশের মাটিতেও সাফল্যের পতাকা উড়িয়েছেন। দেশের বাইরে কোনো খেলাধুলায় ৩০ লাখ শহীদের বিনিময়ে পাওয়া বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংগীত বেজেছিল তারই কৃতিত্বে। ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন তিনি।

সেই কিংবদন্তি সাঁতারু মোশাররফ এখন ঢাকায়। দীর্ঘ ১৬ বছর পর আমেরিকা থেকে দেশে ফিরেছেন তিনি। ২০০২ সালে তিনি আমেরিকা চলে যান। আগে থেকেই তার স্ত্রী ও দুই কন্যা ক্যালিফোর্নিয়ায় বসবাস করতেন। সুতরাং তিনি আমেরিকা যাওয়া-আসা করবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ২০০২ সালে তার মতো বিখ্যাত সাঁতারুকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছিল। তা এক করুণ কাহিনী। যা সভ্য সমাজে ভাবাই যায় না। মহাখালী ডিওএইচএসে বাসায় বসে সেই কাহিনী যখন মোশাররফ বলছিলেন তখন তার চোখ ছল ছল করে উঠছিল। বার বার তিনি চশমা খুলে চোখ মুচছিলেন। বললেন, ‘১৯৯৬ সালে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা আদায়ে প্রেস ক্লাবের সামনে মেয়র হানিফের নেতৃত্বে জনতার মঞ্চ গড়া হয়েছিল। যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী অনেকে ওই মঞ্চে গিয়ে বক্তব্য রেখেছিলেন। একজন দেশ প্রেমিক ও বঙ্গবন্ধু আদর্শে বিশ্বাসী সৈনিক হিসেবে আমিও জনতার মঞ্চে বক্তৃতা দিয়েছিলাম। বিশ্বাস করবেন না মঞ্চে আমাকে দেখে হাজার হাজার জনতার সেকি উল্লাস। সেই বছরই নির্বাচনে জয়ী হয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। কোনো সংকোচ না রেখে বলছি আমি আওয়ামী লীগের সমর্থক। শেখ হাসিনা আমাকে আপন ভাইয়ের মতো স্নেহ করতেন। এখনো করেন। বলতে পারেন আওয়ামী লীগ আমার রক্তে মিশে গেছে। ইচ্ছা করলেই তখন অনেক সুযোগ সুবিধা নিতে পারতাম। কিন্তু নিজেকে সাঁতারের সেবায় নিয়েজিত রেখেছিলাম। আমার চিন্তা ছিল একটাই কিভাবে সাঁতারে উন্নয়ন ঘটানো যায়।’

মোশাররফ বললেন, ‘খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি যখন প্রথম সরকার গঠন করল তখনো আমি সাঁতার ফেডারেশনের সেক্রেটারি ছিলাম। দায়িত্ব নিজেই ছেড়ে দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু তৎকালীন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী সাদেক হোসেন খোকা আমার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেননি। বলেছিলেন, সাঁতারে আপনার দরকার আছে। অথচ ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর যে মানসিক টর্চার শুরু করেছিল তা ভাষায় বুঝাতে পারব না। সাঁতার ফেডারেশনে আমি ছোট একটা মিউজিয়াম করেছিলাম। আমার ক্যারিয়ারে যত মেডেল, স্বাধীনতা ও জাতীয় পুরস্কারের সনদপত্র এখানে রেখেছিলাম। বিএনপি ক্ষমতা আসার পরের দিনই ফেডারেশনে গিয়ে দেখলাম সব পুড়িয়ে ছাই করে ফেলেছে। আমি শিশুর মতো কেঁদেছি।’ মোশাররফ বললেন, ‘শুধু তাই নয়, টেলিফোনে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। ভেবেছিলাম সব ঠিক হয়ে যাবে। বিএনপির সঙ্গে জড়িত এক নেতা একদিন রাতে আমার বাসায় এসে হাজির। তিনি আমাকে বললেন, মোশাররফ আপনি দেশের গর্ব। গোটা জাতি আপনার অবদানের কথা চিরদিন মনে রাখবে। আপনাকে হত্যা করা হোক তা কেউ চায় না। অস্বীকার করবো না আমাদেরই দলের কিছু বাজে লোক আপনাকে মেরে ফেলার ষড়যন্ত্র করছে। আমি চাই আপনি দেশ ছেড়ে চলে যান। তা না হলে আপনাকে হারাবো। চোখের সামনে ভেসে উঠল বৌ-বাচ্চার ছবি। তার পর এক বুক জ্বালা নিয়ে দেশ ছাড়তে বাধ্য হলাম।’

এতদিন পর দেশে ফিরেছেন। অনেকে বলছেন সামনের নির্বাচনে আপনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চান? মোশাররফ বললেন, ‘দেখেন যার সঙ্গে দেখা হচ্ছে একটাই কথা বলছে সামনে আমি নির্বাচন করবো কিনা। বাস্তবে কিন্তু সেই চিন্তা মোটেই নেই। অনেক দিন ধরেই আসবো আসবো করছিলাম। নানা ব্যস্ততায় সম্ভব হচ্ছিল না। এবার আসার পেছনে বেদনাদায়ক এক ঘটনা রয়েছে। গত মার্চে কাঠমান্ডুতে ইউএস বাংলার বিমান বিধ্বস্ত হয়ে অনেক প্রাণহানি ঘটে। সেই বিমানে যাত্রী ছিল আমার স্ত্রী মিলার মেঝ বোনের ছেলে মিনহাজ বিন নাসির ও তার স্ত্রী আঁখি মনি। ৩ মার্চ তাদের বিয়ে হয় আর ১২ মার্চ বিমান দুর্ঘটনায় মারা যায় তারা। দেখেন ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। আজ আমি যে বাসায় আপনার সঙ্গে কথা বলছি এটা মিনহাজেরই বাসা। এক বেদনা নিয়ে দেশ ছাড়লাম আরেক বেদনা নিয়ে ফিরলাম। এই শোক কখনো ভোলার নয়।’

এতক্ষণ কষ্টের কথা শুনলাম। এবার আপনার খেলোয়াড়ি জীবনের কথা বলেন? প্রশ্নটা শুনে দীর্ঘ একটা নিঃশ্বাস ফেললেন মোশাররফ। বললেন, ‘কী আর বলবো সব প্রাপ্তিতো আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এরপর শুরু করলেন তার বনার্ঢ্য ক্যারিয়ারের কথা। দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় সোনার পদক জেতা শুরু করি। সেবার মুন্সীগঞ্জে এক প্রতিযোগিতায় অনেক সিনিয়রদের পেছনে ফেলে চ্যাম্পিয়ন হয়। সেই থেকে সবার নজরে পড়ে যায়।

১৯৬৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপের চার ইভেন্টে সোনা জয় করি। একটিতে গড়ি অল পাকিস্তান রেকর্ড। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ থেকে ১৯৮৮ পর্যন্ত কমপক্ষে চারটি করে ইভেন্টে সোনা জেতার রেকর্ড রয়েছে। বয়স হয়েছেতো আসলে অনেক প্রাপ্তির কথা মনেই করতে পারছি না। তবে এতটুকু বলতে পারব সব মিলিয়ে ৯৬টি সোনা ও ৬৪ বার জাতীয় রেকর্ড ভেঙেছি আমি।’

মোশাররফ বলেন, ‘আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় প্রথম সোনা জিতি ১৯৭৭ সালে। সেবার শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সুইমিং চ্যাম্পিয়নশিপ অনুষ্ঠিত হয়। দুই দেশে বিখ্যাত সাঁতারু। যা দেখে প্রথমে আমিও নার্ভাস ছিলাম। পরে আমিই চার সোনা জিতে চ্যাম্পিয়ন হই। প্রথম সোনা জেতার পর আবেগে আমি কেঁদেই ফেলেছিলাম। বাংলাদেশের ইতিহাসে দেশের কোনো খেলায় প্রথম জাতীয় সংগীত বাজছে। অনেক পদক জিতেছি কিন্তু এই অনুভূতি কখনো ভোলবার নয়। ১৯৭৮ সালে পাকিস্তানের লাহোরে কায়েদে আযম আন্তর্জাতিক সুইমিংয়ে অংশ নিই। আমার ইচ্ছা ছিল না টুর্নামেন্টে যাওয়ার। বলতে পারেন মনের ভিতর একটা ভয়ও কাজ করছিল। কারণ আগের বছরে চট্টগ্রামে ক্রিকেট ম্যাচে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের তিরস্কৃত করেছিল দর্শকরা। লাহোরে যদি আমাকে কিছু করে। পরে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ফেডারেশনের সেক্রেটারিকে ডেকে বলেন, মোশাররফকে যেতে বলেন, ওর কিছুই হবে না। টুর্নামেন্টে অংশ নিলাম এবং চার ইভেন্টেই সোনা জিতলাম।’

১৯৮৫ সালে ঢাকায় সাফ গেমসে সাঁতারে মহানায়ক বনে যান মোশাররফ। রাষ্ট্রপতি এরশাদ তাকে বঙ্গভবনে ডেকে বলেছিলেন, মোশাররফ তুই দেখিয়ে দে তোর বিকল্প কেউ নেই। মোশাররফ বলেন, ‘ওনার এই কথা মনে জোর বাড়িয়ে দেয়। পাঁচটি সোনা জিতে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা ক্রীড়াবিদের খেতাব পাই। অলিম্পিক ও এশিয়ান গেমস প্রসঙ্গে মোশাররফ বলেন, দেখেন ষড়যন্ত্রের কারণে আমি স্বপ্নের অলিম্পিকে অংশ নিতে পারেনি। আর এশিয়ান গেমস পদক না পেলেও বেস্ট উদীয়মানের সাঁতারুর সার্টিফিকেট পেয়েছি।’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow