Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৩ জুলাই, ২০১৮ ০১:০৬
শেষ বাঁশির অপেক্ষায়
ক্রীড়া প্রতিবেদক
শেষ বাঁশির অপেক্ষায়
ফিফা সভাপতি ইনফ্যান্টিনো

ফিফা সভাপতি হওয়ার পর এটিই প্রথম বিশ্বকাপ ইনফ্যান্টিনোর। প্রথমে তিনি শঙ্কিত ছিলেন বিশ্বকাপ আয়োজনে ব্যাঘাত ঘটবে কিনা। কেননা এক বছর আগেও রাশিয়ার অনেক ভেন্যু অপ্রস্তুত ছিল। সময়মতো সব ঠিক হয়ে যাওয়ায় তিনি স্বস্তি প্রকাশ করেন। সত্যিকথা বলতে  বড় একটা চ্যালেঞ্জে ছিলেন। কেননা নির্ধারিত সময় খেলা মাঠে না গড়ালে তিনি শুধু বিতর্কিত হতেন না। তাকে হটানোর জন্য অনেকে আন্দোলনের ডাক দিতেন। সেই চ্যালেঞ্জে বিজয়ী হতে চলেছেন ইনফ্যান্টিনো। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই রাশিয়া বিশ্বকাপ শেষ হতে চলেছে। তবে ফিফা সভাপতি বলেন, এখনো আমার বুক থেকে বড় পাথর সরে যায়নি। ১৫ জুলাই রেফারির শেষ বাঁশি ও ট্রফি বিতরণের পর নিজেকে ভাগ্যবান মনে করব। আমি সেই দিনটির অপেক্ষায় রয়েছি। ইনফ্যান্টিনো উপস্থিত থেকে বিশ্বকাপের প্রায় প্রতিটি ম্যাচ উপভোগ করছেন। তিনি বলেন, রাশিয়া আয়োজক হওয়ায় অনেক সমালোচনা হয়েছে। এখন দেখছি রাশিয়া স্মরণকালের সেরা বিশ্বকাপ শেষ করতে যাচ্ছে। তাদের আন্তরিকতা ও পরিশ্রমে সবকিছু সার্থক হতে চলেছে। ২০২২ সালে পরবর্তী বিশ্বকাপ কাতারে অনুষ্ঠিত হবে। ইনফ্যান্টিনো বলেন, কাতার এখন থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে। আমার বিশ্বাস কাতারও সার্থক হবে। এবারের বিশ্বকাপে জাপান শুধু দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠেছিল। তারপরও ফিফা সভাপতি এশিয়ার পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট। ২০১৪ চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে হারিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, পর্তুগালের বিপক্ষে ইরান ড্র করেছে। স্পেনেরও ঘাম ঝরিয়েছে। অস্ট্রেলিয়াতো প্রায় রুখেই দিয়েছিল ফ্রান্সকে। সৌদি আরব ও গতিময় ফুটবল খেলেছে। ফুটবলে এশিয়ার মানের উন্নতি যে ঘটেছে বিশ্বকাপেই তা প্রমাণ দিচ্ছে। ইনফ্যান্টিনো দৃঢ় কণ্ঠে বলেছেন, ফুটবল উন্নয়নে ফিফা এশিয়ার প্রতি আলাদা নজর দেবে। নতুন শক্তির উত্থান হলে ফুটবলের আরও জনপ্রিয়তা বাড়বে বলে ফিফা সভাপতি বিশ্বাস করেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow